শিক্ষার মান + স্বল্প খরচ = জার্মান বিশ্ববিদ্যালয়

 


ইউরোপের অনেক দেশের তুলনায় জার্মানিতে বিদেশি ছাত্রছাত্রী আগমনের হার গত কয়েক বছরে উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে৷ এর কারণ জার্মানির শিক্ষার মান বিশ্বের অন্যান্য দেশে স্বীকৃত৷ জার্মানিতে শিক্ষার্থীদের জন্য আয়ের সুযোগও অনেক বেশি৷

বাংলাদেশের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র রবিউল হোসেন৷ সেখান থেকে জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এ পড়াশোনা করেছেন৷ এখন বন রাইনজিগ ইউনিভার্সিটি অফ অ্যাপ্লাইড সায়েন্স’এ বায়োমেডিকেল সায়েন্স’এ মাস্টার্স করছেন৷ জার্মানিকে বেছে নেওয়ার কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ‘‘আমার মনে হয় জার্মানি বাংলাদেশি ছাত্রদের জন্য একটি ভালো পড়াশোনার লক্ষ্যস্থল হতে পারে, কারণ এখানে পড়ার জন্য আপনার তেমন টাকা পয়সার প্রয়োজন নেই৷ একটু ভালো রেজাল্ট থাকলেই বিশ্বমানের যে কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে আপনি পড়তে পারবেন৷”

জার্মানির বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশোনার আরও একটি বড় ইতিবাচক দিক হলো এখানকার শিক্ষার মান৷ বিশ্বের অনেক উন্নত দেশের চেয়েও এখানকার পড়াশোনার মান ভালো৷ তাই সব জায়গাতেই এর স্বীকৃতি রয়েছে, জানালেন শেখ সানি আমান, যিনি একই বিশ্ববিদ্যালয়ে অটোনমাস সিস্টেম নিয়ে পড়াশোনা করছেন৷ তাঁর ভাষায়, ‘‘এমনকি যুক্তরাষ্ট্রেও জার্মানির যে কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল্যায়ন করা হয়, ভালো বিশ্ববিদ্যালয় হলে তো অবশ্যই৷ অথচ ব্রিটেন কিংবা অস্ট্রেলিয়ার যে কোনো বিশ্ববিদ্যালয়কে কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রে সমমান দেওয়া হয় না৷ জার্মানির বেলায় এটা ব্যতিক্রম, কারণ সবাই জানে জার্মানির বিশ্ববিদ্যালয়গুলো একটি ন্যুনতম মান বজায় রাখে৷”

 জার্মানিতে যেসব ছাত্রের তথ্য প্রযুক্তি খাতে কাজ করার কিংবা পড়ার অভিজ্ঞতা রয়েছে তাদের জন্য এখানে কাজ করার বেশ ভালো সুযোগ রয়েছে

বিদেশে পড়তে আসার আগে ছাত্রছাত্রীরা পড়াশোনার খরচ নিয়ে চিন্তা করে৷ এই জন্য তাদের জন্য রয়েছে নানা বৃত্তি৷ তবে এর বাইরেও তাদের সুযোগ রয়েছে৷ এই ব্যাপারে রোবটিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং এর ছাত্র হাসান আল বান্না জানান, ‘‘শুরুতে ডিএএডি-র বৃত্তিগুলোর খোঁজ নেওয়া দরকার৷ এরপর যদি সেখানে না মেলে তাহলে ইউরোপের বিভিন্ন সংস্থার পক্ষ থেকে বৃত্তির সুযোগ আছে৷ তাই তখন সেগুলো দেখা যেতে পারে৷ যেমন এরাসমুস মুন্ডুস’এর বৃত্তি আছে, একটু ভালো রেজাল্ট থাকলেই সেটা পাওয়া সম্ভব৷ আর যদি বৃত্তি পাওয়া না যায়, তাহলে প্রথম এক বছরের খরচটা নিয়ে আসা ভালো৷ কারণ প্রথম এক বছর পড়াশোনার মধ্যে ব্যস্ত থাকতে হবে৷ এরপর আস্তে আস্তে কাজ পাওয়া যাবে৷ আর জার্মান জানা থাকলে কাজের সুযোগ আরও বেশি৷”

জার্মানিতে যেসব ছাত্রের তথ্য প্রযুক্তি খাতে কাজ করার কিংবা পড়ার অভিজ্ঞতা রয়েছে তাদের জন্য এখানে কাজ করার বেশ ভালো সুযোগ রয়েছে৷ তথ্য প্রযুক্তির ছাত্র আমান নিজেই একটি সংস্থার হয়ে কাজ করছেন৷ তিনি জানান, ‘‘জার্মানিতে তথ্য প্রযুক্তি খাতে দক্ষ লোকের অভাব আছে৷ বিশেষ করে সফটওয়্যার খাতে৷ এর বাইরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের যদি নজরে আসা যায় তাহলে সেখানে কাজের সুযোগ আছে৷”

জার্মানিতে পড়তে আসা অনেক শিক্ষার্থী আছেন যারা বৃত্তি ছাড়াই পড়াশোনা করছেন৷ একজন ছাত্রের পক্ষে পার্টটাইম কাজ করেই নিজের খরচ চালানো সম্ভব বলে জানালেন বাংলাদেশি ছাত্র রবিউল হোসেন৷ তিনি নিজেই পার্টটাইম কাজ করে নিজের খরচ চালাচ্ছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘জার্মানিতে একজন ছাত্র সপ্তাহে দু’দিন কাজ করেই নিজের খরচ চালাতে পারে৷ এটা তেমন কোনো চাপ হয় না৷ কারণ ইউরোপের অন্যান্য দেশের তুলনায় জার্মানিতে থাকা-খাওয়ার খরচ কম৷”

মোট কথা, শিক্ষার মান আর স্বল্প খরচ এই দুইয়ের কারণে জার্মানি হয়ে উঠছে উন্নত শিক্ষার অন্যতম লক্ষ্যস্থল৷

প্রতিবেদন: রিয়াজুল ইসলাম

সম্পাদনা: জাহিদুল হক

সোর্সঃ dw.de

Print Friendly, PDF & Email

ফেসবুক মন্তব্যঃ

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

  1. I md. abu rayhan already i completed S.S.C (vocational) & 4 -years diploma in Electrical Engineering course under The Bangladesh technical Education Board. Now I am study to B.Sc. in EEE Program of daffodil Internation University (Bangladesh). My dream country of German so my next M.Sc. Degree complete your university. My date of bath 26/03/1988 How it is possible of my dream.Please give details information of my situation.

    Thanks
    Md. ABU RAYHAN
    Dhaka, Bangladesh