টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি বার্লিন

 

টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি বার্লিন প্রতিষ্ঠিত হয় ১৭৯৯ সালে৷ সেই সময় এর নাম ছিল প্রাশিয়ান বিল্ডিং একাডেমি৷ তখন এই বিশ্ববিদ্যালয়টি জনপ্রিয় ছিল গবেষণা এবং অধ্যাপনার জন্য৷ এর ঠিক ৮০ বছর পর বিশ্ববিদ্যালয়টি সম্প্রসারণ করা হয়৷

তার সাথে জুড়ে দেয়া হয় রয়্যাল টেকনিক্যাল কলেজ অফ বার্লিনকে৷ ১৯৪৬ সালে পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করা হয় বিশ্ববিদ্যালয়টি নতুন একটি নামে৷ টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি বার্লিন বা টি ইউ বার্লিন৷

২০০১ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী এই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করছে ৩০ হাজারেরও বেশী ছাত্র-ছাত্রী৷ তাদের মধ্যে ২০ শতাংশই হচ্ছে বিদেশী ছাত্র-ছাত্রী৷ সবমিলে আছে চারশরও বেশী অধ্যাপক৷ প্রশাসন, ওয়ার্কশপ এবং গবেষণাগারগুলোতে প্রতিনিয়ত সাহায্য করে যাচ্ছে আড়াই হাজারেরও বেশী মানুষ৷

এই বিশ্ববিদ্যালয়ে আছে আটটি অনুষদ এবং এই অনুষদগুলোর অধীনে আছে ৫০ টি বিভিন্ন ধরনের কোর্স৷ সেগুলোর মধ্যে আছে প্রকৌশল, বিজ্ঞান ভিত্তিক বিষয়, অর্থনীতি, ব্যবসা এবং ব্যবস্হাপনা, মানবিক এবং সমাজ বিজ্ঞান বিভাগ৷ কিন্তু প্রকৌশল এবং বিজ্ঞান ভিত্তিক বিষয়ের জন্য এই বিশ্ববিদ্যালয়টি বিশেষ পরিচিতি লাভ করেছে৷

বার্লিনের একেবারে কেন্দ্রস্থলে অর্থাত্ হার্ট অফ বার্লিনে অবস্হিত টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি বার্লিন৷

মানবিক অনুষদের অধীনে রয়েছে ইতিহাস, দর্শন, ফরাসী ভাষায় পড়াশোনার মত বিষয়গুলো৷ মাস্টার্স এবং পিএইচডি করার সুযোগ দিচ্ছে এই অনুষদটি৷ এছাড়াও আছে মিডিয়া উপদেস্টার মত বিষয় যেখানে ক্যারিয়ার গড়ার ওপর জোর দেয়া হয়৷

গণিত এবং সাধারণ বিজ্ঞান অনুষদে গণিত রাজ্যের বিভিন্ন দিক যেমন জিওমেট্ট্রি, এলগরিমিথ ম্যাথমেটিক্স, স্টোখাস্টিক্স এবং ম্যাথম্যাটিক্যাল ফিজিক্স অন্যতম বিষয়৷ এই অনুষদটি মুলত গবেষণামূলক৷ এই বিষয়গুলোতে ডিপ্লোমা অর্জন করা যায়৷ এছাড়াও আনুষাঙ্গিক আরো একটি কোর্স আছে যার নাম ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড বিজনেস ম্যাথ৷ রসায়ন এবং পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ দুটি আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত৷ পদার্থবিজ্ঞান বিভাগে শেখানো হয় রঞ্জন রশ্মির আধুনিক ব্যবহার৷ শেখানো হয় ইলেকট্রনিক্স এবং অপটিক্সের মিশ্রনের ফলে ফটোনিক্সের সর্বাধুনিক ব্যবহার৷

ইলেকট্রিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং এবং কম্পিউটার সাইন্স অনুষদে ইলেকট্রিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং, কম্পিউটার সাইন্স এবং কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং -এর ওপর মাস্টার্স করার সুযোগ আছে৷ অন্য আরেকটি বিষয়ে এই অনুষদটি সফলতা অর্জন করেছে আর তা হল কম্পিউটার চিপস্ তৈরী৷

রয়েছে স্হাপত্য কলা অনুষদ৷ এই অনুষদে স্হাপত্য কলা, ভূমি পরিকল্পনা, নগরায়নের ক্ষেত্রে সুষম নগরের পরিকল্পনা, আঞ্চলিক পরিকল্পনা ইত্যাদি বিষয় নিয়ে পড়াশোনা করা যায়৷ বর্তমানে জার্মান চ্যান্সেলরের অফিসটির স্হাপত্যের দায়িত্বে ছিল টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি বার্লিনের কয়েকজন স্নাতক ছাত্র-ছাত্রী এবং তাদের অধ্যাপক৷

শুধু তাই নয় তৃতীয় বিশ্বের ঘনবসতিপূর্ণ দেশগুলোতে নগরায়ন এবং নগর পরিকল্পনার পরীক্ষামূলক গবেষণার কয়েকটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে এই বিশ্ববিদ্যালয়টি৷ বর্তমানে স্হাপত্য কলা অনুষদটি কাজ করছে মেক্সিকো সিটির নগর পরিকল্পনার ওপর৷

এছাড়া আরো অনেক অনুষদ রয়েছে এই ইউনিভার্সিটিতে যা আগ্রহ জাগাতে পারে আপনাদের মনে৷

টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি বার্লিন বছরে দুবার আবেদন পত্র গ্রহণ করে থাকে৷ শীতকালীন সেমিস্টারের জন্য আবেদন পত্র জমা দেয়ার শেষ তারিখ ১৫ জুলাই এবং গ্রীষ্মকালীন সেমিস্টারের জন্য ১৫ই জানুয়ারী৷

আমাদের রয়েছে ভবিষ্যতের মেধাশক্তি৷ এই স্লোগান নিয়ে বেশ দ্রুতগতিতেই এগিয়ে যাচ্ছে টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি বার্লিন৷

টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি বার্লিনের ঠিকানা:
TU Berlin
Public Relations and Public Information Office
Strasse des 17. Juni 135
D- 10623 Berlin
Tel : 0049 30 314 22 919 or 23922
Fax : 0049 30 314 23 909

 

বিদেশী ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য আন্তর্জাতিন ভর্তি অফিসের ই-মেইল এড্রেস: international.admission@tu- berlin.de৷ টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি বার্লিনে পড়াশোনার জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য এই অফিস থেকে আপনারা জেনে নিতে পারবেন৷

প্রতিবেদন মারিনা জোয়ারদার
সূত্রঃ  DW.de
Update: টিইউ বার্লিনে এই মুহুর্তে কোন ডিপ্লোমা কোর্সে ভর্তি হওয়া যায় না। Bologna Accord এর আওতায় জার্মানি তাদের পুরাতন ডিপ্লোম সিস্টেম ছেড়ে নতুন ব্যাচেলর, মাস্টার্স কোর্সপদ্ধতিতে তাদের বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষা সাজিয়েছে। টিইউ বার্লিনেও এখন এই কারণে পুরাতন ডিপ্লোমের বদলে ব্যাচেলর্স ও মাস্টার্স কোর্সে ছাত্র ছাত্রী ভর্তি করা হয়।
Print Friendly