• Home »
  • Deutsche-Welle-Article »
  • স্যাক্সনি রাজ্যের বৃহত্তম বিশ্ববিদ্যালয় টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি ড্রেসডেন

স্যাক্সনি রাজ্যের বৃহত্তম বিশ্ববিদ্যালয় টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি ড্রেসডেন

 


সাবেক পূর্ব জার্মানির শহর ড্রেসডেনে অবস্থিত টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি ড্রেসডেন ৷ স্যাক্সনি রাজ্যের বৃহত্তম বিশ্ববিদ্যালয় এটাই৷ ড্রেসডেনে এই ইউনিভার্সিটি প্রতিষ্ঠিত হয় ১৮২৮ সালে৷ ১৮২৮ সালে বিশ্ববিদ্যালয়টি পরিচিত ছিল ‘রয়্যাল স্যাক্সনি টেকনিক্যাল’ স্কুল নামে৷ আজ বিশ্ববিদ্যালয়টি ইঞ্জিনিয়ারিং, সাধারণ বিজ্ঞান, সমাজবিজ্ঞান এবং চিকিৎসাবিজ্ঞানের জন্য বিখ্যাত৷ টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি ড্রেসডেনের মূল লক্ষ্য হল দেশের জন্য, সমাজের জন্য, মানুষের জন্য কিছু করা৷ উন্নতমানের জীবন যাপনের সঙ্গে মানুষকে একাত্ম করা৷

বর্তমানে টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি ড্রেসডেনে পড়াশোনা করছে প্রায় ৩৫ হাজার ছাত্র-ছাত্রী৷ অধ্যাপনার সঙ্গে জড়িত রয়েছে প্রায় ৪২০ জন প্রফেসর এবং তাদের সর্বক্ষণ প্রয়োজনে সাহায্য এবং সহযোগিতা করে যাচ্ছে আরো প্রায় চার হাজার দু’শো জন অ্যাকাডেমিক স্টাফ৷

জার্মানিতে আসার প্রস্তুতি

ভারতের সিএসআইআর’এর বিজ্ঞানী অনিল কুমার চৌবে৷ তিনি বেশ কিছুদিন সেখানে কাজ করেন এরপর তিনি বেনারস হিন্দু ইউনিভার্সিটি পিএইচডি’র কাজ শুরু করেন৷ কিন্তু তিনি নিজেকে আরো এগিয়ে নিয়ে যেতে চান৷ সেই লক্ষ্যে তিনি ভারতে বসে বিশেষ একটি বিষয় নিয়ে গবেষণা করার জন্য বিদেশে বিশ্ববিদ্যালয় খুঁজতে থাকেন৷ পেয়েও যান৷ সে প্রসঙ্গে তিনি বললেন, ‘‘আমি প্রথম বেনারসে পিএইচডি-র কাজ শুরু করি৷ আমার বিষয় ছিল ‘ম্যাগনেসিয়াম কম্পোজিট’৷ এই বিষয়টি নিয়ে আমি নানা ধরণের বই এবং তথ্য যোগাড় করা শুরু করি৷ কিন্তু কোথাও-ই কিছু পাচ্ছিলাম না৷ যেগুলো পাচ্ছিলাম, সেগুলোই সবই চীন এবং জার্মানিতে৷ এই বিষয় নিয়ে এই দুটি দেশেই কাজ হয়েছে সবচেয়ে বেশি৷ তাই এই দুটি দেশে বইয়ের এবং গবেষণার তথ্য উপাত্তও অনেক বেশি৷ এর মধ্যে থেকেই আমি আমার প্রয়োজনীয় কাগজ-পত্র বেছে নিই৷ তখনই আমি যোগাযোগ করি এই বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন প্রফেসরের সঙ্গে, তিনি আমাকে বেশ কিছু কাগজপত্র পাঠান নির্দিষ্ট বিষয়ের ওপর৷ সে কাগজপত্রগুলো দেখার পর আমি বুঝতে পারি, যে জার্মানিতে এই বিষয় নিয়ে গবেষণার সুযোগ রয়েছে অনেক৷ তখন থেকেই আমি খোঁজ খবর নেওয়া শুরু করি জার্মানিতে পিএইচডি করার জন্য৷”

অনিল কুমার যোগাযোগ করেন ডিএএডি-র সঙ্গে৷ সেখানে থেকেই তিনি বৃত্তি পেয়েছেন জার্মানিতে গবেষণা করার৷ তবে অনিলকে গবেষণার মূল বিষয় নিয়ে রিসার্চ প্রোপোজাল তৈরি করতে হয়েছিল৷ অর্থাৎ জার্মানিতে তিনি কীভাবে কাজ করবেন, গবেষণা কীভাবে চালাবেন, তা বিস্তারিত জানাতে হয়েছিল৷ অনিলের প্রস্তাব গ্রহণ করেছিল টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি ড্রেসডেন৷

এই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যে কোন ড্রিগ্রি অর্জন করা হোক না কেন, তা আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত৷ জার্মানিতে খুব অল্পসংখ্যক বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে, যেগুলোর বিজ্ঞান অনুষদগুলো ড্রেসডেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদগুলোর সমতুল্য হতে পারবে৷ এই অনুষদগুলোতে শিক্ষা, গবেষণা এবং অধ্যাপনার মান অত্যন্ত উঁচুমানের৷

টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি ড্রেসডেনে রয়েছে ১৪টি অনুষদ৷ এই অনুষদগুলোর অধীনে প্রায় দুশোটি বিভিন্ন বিষয় নিয়ে পড়ার সুযোগ দিচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়টি৷

[youtube_sc url=”http://www.youtube.com/watch?v=8O99L3H6DWc”]

জার্মানরা সংস্কৃতিমনা সেই জন্যই ভাষাটি শেখা চাই

জার্মানিতে পড়াশোনা বা গবেষণার জন্য জার্মান ভাষার প্রয়োজনীয়তা কতটুকু ? অনিল কুমার সে প্রসঙ্গে বললেন, ‘‘যে কোন ছাত্র-ছাত্রী, যে জার্মানিতে পড়াশোনার জন্য আসতে চায় তাদের জার্মান শেখা খুব জরুরি৷ কারণ ভাষাটি জানা থাকলে মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ করা যায় খুব সহজে৷ যে কোন প্রশ্ন তাৎক্ষণিকভাবে করা যায়৷ চটপট উত্তরও পাওয়া যায়৷ এবং যে কোন বিষয় কেউ যদি বোঝাতে চায়, তাহলে সে তার মাতৃভাষায় সবচেয়ে ভাল বোঝাতে পারবে৷ আর জার্মানিতে বসবাস করার জন্য, এখানে গবেষণা করার জন্য জার্মান ভাষার প্রয়োজনীয়তা অনেক বেশি৷ এছাড়া আমি শুনেছি, জার্মানরা সংস্কৃতিমনা৷ ওদের সংস্কৃতি সম্পর্কেও যদি আমি আরো জানতে চাই, গভীরে যেতে চাই তাহলে ভাষাটা জানা থাকা জরুরি৷ আমি এখানে গবেষণা করবো – টুকটাক প্রশ্ন আমি সারাক্ষণই করবো৷ আমাকেও সহকর্মীরা প্রশ্ন করবে৷ সেই ছোটখাট কথাবার্তাগুলো জার্মান ভাষাতে হলে দু’পক্ষের জন্যই সুবিধা৷ অন্ততপক্ষে ভাষাটাকে বোঝার মত ক্ষমতা থাকা চাই৷”

প্রতিবেদন: মারিনা জোয়ারদার
সম্পাদনা: সুপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়
সূত্রঃ  DW.de

 

#BSAAG_Finding_the_Right_University

জার্মান ভাষা অনুশীলন এবং প্রশ্নোত্তের জন্য যোগ দিন ফেসবুকে বিসাগের জার্মান ভাষা শিক্ষা গ্রুপেঃ www.facebook.com/groups/deutsch.bsaag


জার্মানিতে উচ্চশিক্ষা বা ক্যারিয়ার সংক্রান্ত প্রশ্নের জন্য যোগদিন বিসাগের ফেসবুক ফোরামেঃ www.facebook.com/groups/bsaag.reloaded

Print Friendly, PDF & Email