স্টুডেন্ট কনসালটেন্সি ফার্ম গুলোর প্রতারনার কৌশল -১

 

আজকাল ঢাকার বিভিন্ন অলিতে গলিতে কিংবা মেইন রোডের পাশে গড়ে উঠেছে স্টুডেন্ট কনসালটেন্সি ফার্ম । এদের কেউ কেউ মালয়েশিয়া, সাইপ্রাস কিংবা যুক্তরাজ্য স্টুডেন্ট ভিসায় গিয়ে সুবিধা করতে না পেরে দেশে এসে ফার্ম দিয়ে বসেছেন। কেউ আবার এসব ফার্মে চাকুরী করার অভিজ্ঞতা নিয়ে নিজেই ফার্ম দিয়ে বসে পরেছেন ।

সাধারনত যেসব স্টুডেন্টরা বিদেশে ছাত্র ভিসা নিয়ে যেতে চায় তারা পত্রিকা কিংবা অনলাইন মার্কেটের মাধ্যমে তাদের খোজ পেয়ে থাকেন। তবে অনলাইন মার্কেট প্লেসে এ্যাড ফ্রি হওয়ায় এরা খুব সহজেই আকর্ষনীয় বিজ্ঞাপন নিয়ে স্টুডেন্টদের মনযোগ আকৃষ্ট করতে সক্ষম হয়। যেমন – ভিসার আগে এক টাকাও লাগবে না, নো উইন নো ফি..এই ধরনের আর কি..

এ্যাড দেখে ফোন দেয়ার পর, বেশীর ভাগ ক্ষেত্রেই এরা স্টুডেন্টদের পাসপোর্ট ও কাগজপত্র নিয়ে আসতে বলবে, এবং বাকী কথা সাক্ষাতে বলার কথা বলে থাকে।

স্টুডেন্ট চলে আসলে রিসিপসনিস্ট বলবে, ভাই একটু বসুন, বস বিজি,(বিজি থাকুক আর নাই থাকুক) বেশ কিছুক্ষন পর বসের ডাক আসল, রুম এ যাওয়ার পরও বিজি ভাব দেখাবে।

………..স্যরি ভাই, আসলে এই কাজটাতে অনেক রেসপন্স, সময় ও কম । যাই হোক,,,,,,,। স্টুডেন্টদের বয়স ও মনোভাব অনুযায়ী সেই দেশ সস্পর্কে অনেক মজার মজার তথ্য দিবে। আর ভিসা নিয়া আপনার চিন্তা করতে হবে না । ………..এত মাসের একমোডেসন, টিউশিন ফি, এয়ারপোর্ট পিকাপ, সার্ভিস চার্জ সব আমাদের মধ্যে, ভিসা হওয়ার আগে আমরা কোন চার্জ নেইনা।

Agency`s Traps

এসব শুনে স্টুডেন্টরা অনেকটাই উৎসাহী হয়ে উঠেন, ব্যাস !!

সময় কিন্তু একদম হাতে নেই, আমরা আর মাত্র কয়েকটি ফাইল হাতে নিব। তাহলে আপনি কালই বাসায় কথা বলে ফাইল জমা দিয়ে যান। আর হ্যা, সাথে এ্যাডমিশন ফি ও ডি এইচ এল ফি বাবদ বিশ হাজার টাকা দিয়ে যাবেন।

….ভাই আপনে না বললেন, নো উইন নো ফি, হুম… কোন কারনে যদি ভিসা মিস যায় আপনার টাকা ১০০% রিফান্ডেবল । সো, আপনার তো কোন লস হচ্ছে না, আর আমরা তো অন্যান্য ফার্মের মত ফাইল ওপেনিং চার্জ নিচ্ছি না । আমরা আপনার জন্য এত টাকা ইনভেস্ট করতেছি কি ভিসা না হওয়ার জন্য?? এই সামান্য অংক আপনার নিজের জন্যই নিজে দিবেন । তাও আবার আমরা রিস্ক নিচ্ছি। সো আপনার কি টেনশন, টেনশন তো করব আমরা….

মজার ব্যাপার হচ্ছে, কিছু কিছু ফার্ম পারুক আর নাই পারুক, ফাইল টাইল নিয়ে একটু চেস্টা করে দেখে । না হলে তো লস নেই। টাকা যা পাওয়ার তা তো পকেটে ঢুকেই গেছেই।

আবার অনেকেই ও পর্যন্তই,,, স্টুডেন্ট ফোন দিলে ভাই আগামী সপ্তায় এপ্রভাল আসবে। এভাবে কয়েক সপ্তাহ চলে গেলে, ভাই একটু ঝামেলা হয়ে গেছে। এই সেমিস্টার টা মিস হয়ে গেছে। ১ মাস পর থেকেই আগামী সেমিস্টারের কাজ শুরূ হয়ে যাবে। তুমি সবার আগে যাবে।

….ভাই আমি যাব না, টাকা ফেরত দেন। কি বল ভাই তোমার তো এ্যাডমিশন ফি দেওয়া হয়ে গেছে। তুমি মাত্র বিশ হাজার টাকা দিয়া এত কথা বলতাছো, আর আমরা তোমার পিছনে ইতিমধ্যে ২লাখ টাক ইনভেস্ট করে ফেলছি । তুমি এখন এই কথা বললে হবে??? তোমার ভিসা না হলে আমাদের কি অবস্হা বুজতে পারতাছো। আর তুমি তো একা না তোমার মত এমন আরো ৫০ টা ফাইল আছে। তোমার তো মাত্র ২০ হাজার নিয়া এত কথা কইতাছো আর আমার অলরেডি এক কোটি টাকা ইনভেস্ট করা হয়ে গেছে।

লেখকঃ KM Shahriar‎

Sydney, Australia.

#BSAAG_Agency_Hope_vs_Reality

 

Print Friendly, PDF & Email