• Home »
  • Travel »
  • যাত্রাপথে বিমানের কিছু শিষ্টাচার বিধি

যাত্রাপথে বিমানের কিছু শিষ্টাচার বিধি

 

বিমানের শিষ্টাচার বিধি …

অনেক অপেক্ষার পর ভিসা পেলেন । ধুম ধাম করে কেনাকাটাও করলেন, এবার বিমানের টিকেট কাটার পালা, সেটাও দক্ষতার সাথে বুকিং দিলেন … এখন স্বপ্নের জার্মানির পথে উড়াল দেয়াটাই শুধু বাকী .. একটু দাড়ান ! জার্মানি শুধু আপনি একাই যাচ্ছেন না আপনার সাথে যাচ্ছে বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশের সম্মান ।আপানার একটু সাবধানতাই এড়াতে পারে অসস্থিকর পরিবেশ । চলুর দেখে নেয়ে যাত্রাপথে বিমানের কিছু শিষ্টাচার বিধি..

১) বোর্ডিং পাস –

আপনি আগে হোক কিংবা পড়ে হোক বিমান বন্দরে পৌঁছেই বোর্ডিং পাস নিয়ে নিতে ভুলবেন না। আগে ভাগে বোর্ডিং পাস নিয়ে রাখলে সুবিধা অনেক। তাৎক্ষনিক সময় হয়ে গেলে দ্রুত ফ্লাইটে উঠা যায়, শেষ মুহূর্তে ছুটোছুটি করতে হয় না।

 

২) ওয়াশরুম-

আপনি যদি প্রথম বিমানে উঠার অপেক্ষায় থাকেন তবে বিমানে উঠার আগেই টার্মিনাল থেকে ফ্রেস হয়ে নিন। বাথরুম, টয়লেট যথা সম্ভব করে নিন, এতে করে বিমান উড়ে গেলে আকাশে আপনার টয়লেট করার ক্ষেত্রে আলাদা বিড়ম্বনা পোহাতে হবে না।

 

৩) সিট ব্যাল্ট-

বিমানে উঠে নিজের আসনে বসেই প্রধান কাজ হচ্ছে নিজের সিট ব্যাল্ট বেঁধে নেয়া। আপনাকে বিমান বালা কিভাবে সিট ব্যাল্ট বাঁধতে হবে তা শুরুতেই জানিয়ে দিবে। যদি না পারেন তবে বিমান ক্লুদের সাহায্য চাইলে তারাই বেঁধে দিবে।

 

৪) অক্সিজেন মাক্স/ প্যারাস্যুট-

সিট ব্যল্ট বেঁধেই দেখে নিন আপনার অক্সিজেন মাক্স/ প্যারাস্যুট কোথায় রাখা আছে এবং কিভাবে ব্যবহার করতে হবে। না বুঝলে অবশ্যই বিমান বালাদের সাহায্য নিতে পারেন।

 

৫) ভদ্রতা/ বিনয়-

বিমানে উঠলে আপনার নিজের ভদ্রতা এবং বিনয় এর দিকে খেয়াল রাখতে হবে, এমন কোন কাজ করবেন না যাতে আপনার পাশের সিটের যাত্রীর সমস্যার কারণ হতে পারে। পাশের সিট খালি থাকলে তাতে পা তুলে বসবেন না, এতে তার পাশের সিটে বসা যাত্রী বিরক্ত হবেন। খেয়াল রাখবেন আপনার কারনে যেন অন্য কারো বিরক্তি না আসে। ফ্লাইটের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা রক্ষা করা আপনার নিজের দায়িত্ব, খাবার খেয়ে তা নির্ধারিত স্থানে ফেলুন।

 

৬) ফোন ব্যবহার-

বিমানে ফোন কিংবা রেডিও ওয়েব জাতীয় সকল তরঙ্গ ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন। ফোন এরোপ্লেন মুডে রাখুন।

 

৭) ঘুমাবেন না-

বিমানে যাত্রা কালে যথা সম্ভব চেষ্টা করবেন ঘুম না যেতে। বর্তমান সময়ে বিমান দুর্ঘটনা অনেক বেশি হচ্ছে তাই আপনার ঘুমের মাঝেই যদি কনো দুর্ঘটনা ঘটে যায় সময় খুবি কম পাবেন।

 

৮) বিমান উড্ডয়নের সময়-

মনে রাখবেন বিমান আকাশে উড়ে যাওয়ার সময় একটা ঝাঁকি দেয় এবং আপনার আলাদা একটা উনুভুতি হবে। ক্ষেত্রে লিফট নিছে থেকে হঠাত উপরে উঠে যাওয়ার সময় যে উনুভুতি হয় অনেকটাই তেমন তবে একটু প্রকট। আপনি যদি লো- প্রেসারের হয়ে থাকেন তবে এক্ষেত্রে আপনার কিছুটা সমস্যা হতেই পারে।

 

৯) বিমান থেকে নামার সময়-

বিমান থেকে নামার সময় আপনার সাথে থাকা ব্যাগ এবং জিনিস পত্র সব ভালোভাবে গুছিয়ে নিন এবং মনে করে সব সাথে নিয়ে নিন। তাড়াহুড়ো করবেন না, শান্ত ভাবে ধিরে সুস্থে নামার প্রস্তুতি নিন।

সূত্র – ans.bissoy.com

 

জার্মানিতে উচ্চশিক্ষা বা ক্যারিয়ার সংক্রান্ত প্রশ্নের জন্য যোগদিন বিসাগের ফেসবুক ফোরামেঃ www.facebook.com/groups/bsaag.reloaded

Print Friendly, PDF & Email