• Home »
  • BSAAG »
  • সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ড: ১১ই মার্চ সাংবাদিকদের কর্মবিরতি

সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ড: ১১ই মার্চ সাংবাদিকদের কর্মবিরতি

 

সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার-মেহেরুন রুনির হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবিতে আগামী ১১ই মার্চ বাংলাদেশের সব ধরনের গণমাধ্যমে ২৪ ঘণ্টা কর্মবিরতির ডাক দিয়েছেন সাংবাদিক নেতারা৷

এক বছর আগে এই দিন ভোররাতে ঢাকায় নিজ বাসায় দুর্বৃত্তদের হাতে নিহত হন সাগর-রুনি৷ কিন্তু এক বছরেও সাংবাদিক দম্পতি হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত প্রকৃত অপরাধীদের চিহ্নিত বা গ্রেফতার করা হয়নি৷ সাংবাদিকরা অপরাধীদের গ্রেফতারের দাবিতে গত এক বছর নানা কর্মসূচি পালন করেছেন৷ আর বার বার পেয়েছেন প্রতিশ্রুতি৷ কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি৷ তাই সোমবারের সাংবাদিক মহাসমাবেশে সাংবাদিক নেতারা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানান৷

Bangladesch Journalisten getötet 2012

২০১২ সালের এগারোই ফেব্রুয়ারি৷ সেদিন খুব ভোরবেলা জানা গিয়েছিল, ঢাকায় নিজের ভাড়া বাসায় খুন হয়েছেন সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার এবং মেহেরুন রুনি৷ একই ফ্ল্যাটে থাকলেও প্রাণে বেঁচে যান তাদের একমাত্র শিশুপুত্র মেঘ৷

তাঁরা বলেন, সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ডের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের মানবাধিকার আজ প্রশ্নবিদ্ধ৷ সাংবাদিকদের নিরাপত্তা প্রশ্নবিদ্ধ৷ সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে আশ্বাস দেয়ার পরও বিচার মেলেনি৷ সাগর-রুনির পুত্র মেঘের দায়িত্ব নেয়নি কেউ৷ তাঁরা আরও বলেন, এই হত্যাকাণ্ডের বিচারের দাবিতে সাংবাদিক সমাজ ঐক্যবদ্ধ হয়েছে৷ এই ঐক্য কোনোভাবেই ভাঙবেনা৷

সাংবাদিক নেতা ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতার এবং বিচার নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত সাংবাদিকরা মাঠে থাকবেন৷ একই সঙ্গে আরো যে সব সাংবাদিক নিহত হয়েছেন তারও বিচার করতে হবে৷ গণমাধ্যমকর্মীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত এবং মুক্ত গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠা করতে হবে৷ এই দাবিতে কর্মসূচি ঘোষণা করেন তিনি৷

সমাবেশে ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন, জাতীয় প্রেসক্লাব ও ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাংবাদিক নেতাসহ সর্বস্তরের সাংবাদিকরা অংশ নেন৷ ছিলেন সাগর-রুনির স্বজনরা৷ তারা বলেন, তদন্তের নামে, ডিএনএ টেস্টের নামে তদন্ত কর্মকর্তারা এখন বিদেশ সফর করছেন৷ এরই মধ্যে তারা এই সফরে ৪০ লাখ টাকা খরচ করেছেন৷ কিন্তু তদন্তের কিছুই হয়নি৷

সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার-মেহেরুন রুনি তাদের একমাত্র সন্তানসহ জার্মানির বন শহরের কাছে কোনিগসভিন্টারে বসবাস করতেন৷ গতবছর তিনি দেশে ফিরে যান৷ জার্মানিতে বসবাসরত বাঙালিদের সঙ্গে তাদের অনেক স্মৃতি৷ সাগর-রুনির নির্মম হত্যাকাণ্ডে জার্মানিতে সবাই স্তম্ভিত, ব্যথিত, শোকে মুহ্যমান৷ জার্মানিতে গত বছর[২০১২] একটা প্রোগ্রাম হয়েছিল, এই ব্যাপারে। যার ফেসবুক ইভেন্টঃ সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ড: শোকসভা এবং প্রতিবাদ কর্মসূচি বাই সাগর-রুনি’র হত্যাকারীদের বিচার চাই

সূত্রঃ DW.de

Print Friendly