রোহিঙ্গা সংকট এবং জার্মানি

 
জার্মানির নির্বাচন উপলক্ষে ডয়েচে ভেলে গত কয়েকদিন ধরে জার্মানির বেশী কিছু শহরে ঘোরাঘুরি করে বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত জার্মান নাগরিকদের সাক্ষাৎকার নিচ্ছেন। এই সাক্ষাৎকার ফেসবুকে লাইভ সম্প্রচার হচ্ছে। এই সাক্ষাৎকার অনুষ্ঠানকে জনপ্রিয় করে তুলতে ডয়েচে ভেলে কিছু পুরস্কার পর্যন্ত ঘোষণা করেছে। যারা লাইভ দেখে নিচে কমেন্ট করবে, তাদের থেকে বাছাই করা সেরা দশটি কমেন্টকে আকর্ষণীয় পুরস্কার দেয়া হবে। তাদের এই প্রচারণায় কিছুটা হলেও লাভ হয়েছে। ফেসবুক পাতায় অসংখ্য কমেন্ট। এই সাক্ষাৎকারে যুক্ত থাকার কারণে কিছু কমেন্ট পড়ার সৌভাগ্য আমার হয়েছিল। লক্ষণীয় যে, সবচেয়ে বেশী কমেন্ট পড়েছে জার্মানি রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য কি করছে এই নিয়ে।

১৮ই সেপ্টেম্বরে প্রকাশিত জার্মানির স্পিগেল পত্রিকার খবর অনুসারে, জার্মানি বাংলাদেশকে ৬০ মিলিয়ন ইউরো দেবার ঘোষণা দিয়েছে। এই সাহায্য মূলত জীবন রক্ষাকারী ঔষধ এবং খাদ্যের চাহিদা পূরণের জন্য প্রাথমিকভাবে দেয়া হবে।

এই খবরের প্রথম প্রতিক্রিয়া এসেছে জার্মানির ভেতরের একটি রাজনৈতিক দল থেকে। জার্মানির গ্রীন দলের নেতারা বর্তমান সরকারের কাছে পিটিশন দিয়েছেন এই ৬০ মিলিয়ন ইউরো যথেষ্ট নয় বলে। তারা দাবী করেছেন, বার্মার এই অমানবিক আগ্রাসনে জার্মান সরকার যেন চোখ বুজে না রাখেন। একটি উপায়ও তারা বাতলে দিয়েছেন। বার্মা থেকে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে প্রচুর পরিমাণে পোশাক আমদানি হয়। তারা বলেছেন, এই সংকট সমাধান না করা পর্যন্ত বার্মা থেকে কোন পোশাক আমদানি করা হবে না।

Rohingya Muslim children, who crossed over from Myanmar into Bangladesh, wait for their parents who had gone to collect food distributed by aid agencies in Balukhali refugee camp, Bangladesh, Monday, Sept. 18, 2017. Bangladesh has been overwhelmed with more than 400,000 Rohingya who fled their homes in the last three weeks amid a crisis the U.N. describes as ethnic cleansing. Refugee camps were already beyond capacity and new arrivals were staying in schools or huddling in makeshift settlements with no toilets along roadsides and in open fields. (AP Photo/Dar Yasin)

 

 

তারা এমন প্রস্তাবনাও করেছেন, যেন বাংলাদেশ থেকে অন্তত কয়েক লক্ষ রোহিঙ্গাকে মানবাধিকার আইনে জার্মানির আশ্রয় দেয়া হয়। (আল্লাহ জানে সামনে কত বাঙ্গালী নিজেদের রোহিঙ্গা বলে পরিচয় দেয়া শুরু করবে!)

জার্মানির সামনের সপ্তাহের নির্বাচন নিয়ে দুইটা ব্যাপার পরিষ্কার।

প্রথমতঃ, নির্বাচনে কাকে ভোট দেব, এই নিয়েও আর তেমন সংকোচ থাকছে না।

দ্বিতীয়তঃ নির্বাচনে যেই জিতুক, জার্মানি একটি মানবতাবাদী দেশ হিসেবে থাকছে, এটা নিশ্চিত।

ভাগ্যবান এই দেশের ভোটাধিকার পেয়ে!

 

তথ্যসূত্রঃ

www.spiegel.de/politik/ausland/rohingya-bundesregierung-gibt-60-millionen-euro-a-1168538.html
 
http://www.spiegel.de/politik/ausland/volker-beck-deutschland-soll-rohingya-fluechtlinge-aufnehmen-a-1168536.html
আদনান সাদেক
১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭
 
#BSAAG_News
Print Friendly, PDF & Email