• Home »
  • Bachelors »
  • জার্মানির পথেঃ১০ কেন জার্মান ভাষা শিখব!

জার্মানির পথেঃ১০ কেন জার্মান ভাষা শিখব!

 

জার্মানিতে আসতে চাইলে সবচেয়ে আগে যে উপদেশটি আমি ছাত্রছাত্রীদের দিয়ে থাকি, সেটা হল জার্মান শেখা।  অনেকেই বলে জার্মান শেখা কঠিন, এত সময় কই ইত্যাদি। কিন্তু নিজের ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি, জার্মান শেখা আসলে এই নতুন দেশে এসে সফল হবার মূল চাবিকাঠি। জার্মান না শেখার কারণে পড়াশোনা চলাকালীন সময় থেকে শুরু করে পরবর্তিতে চাকরী খোঁজা থেকে সামাজিক জীবনে যে ব্যাপক ভোগান্তি পোহাতে হয়, তার তুলনায় আগে থেকেই জার্মান শেখা সহজতর এবং বুদ্ধিমানের কাজ।

বিষয় খুঁজতেঃ

অনেকেই ডাডে পছন্দের বিষয় খুঁজে পায় না, এই সমস্যা হয় বিশেষত শুধুমাত্র ইংরেজিতে কোর্স খোঁজার কারণে। জার্মানিতে বেশ অনেকগুলো ইংরেজি কোর্স অফার করা হয়। এদের মধ্যে সিংহভাগ মাস্টার্স লেভেলে, তবে ইদানীং ব্যাচেলরের বেশ কিছু কোর্সও ইংরেজি মাধ্যমে পাওয়া যায়। তবে জার্মানির আসল উন্নত মানের শিক্ষা এখনও জার্মান মাধ্যমেই প্রদান করা হয়।

ডাড সাইটে খুঁজলে দেখা যাবে, সর্বোমোট জার্মানিতে সব ইউনিভার্সিটি এবং লেভেল মিলিয়ে ১৬,৪০৮ টি কোর্সের মধ্যে মাত্র ৯২২টি কোর্স ইংরেজিতে অফার করা হয়। তারমানে দাঁড়াচ্ছে, মাত্র ৫ শতাংশ কোর্স ইংরেজি ভাষায় প্রদান করা হচ্ছে। শুধুমাত্র জার্মান ভাষা না শেখায় প্রায় ৯৫ শতাংশ জার্মান কোর্স হাতের নাগালের বাইরে চলে যাচ্ছে।

আমি উপদেশ দেব, ভাষা শিখে জার্মান মাধ্যমে উচ্চশিক্ষায় আসতে। ব্যাচেলরে তো বটেই, সম্ভব হলে মাস্টার্স লেভেলেও।

ভিসা পাওয়াঃ

কেউ যদি জার্মান ভাষায় ভিসা ইন্টার্ভিউ মোকাবেলা করতে পারে, তাহলে তার ভিসা পাবার সম্ভাবনা অন্য যেকারো চেয়ে অনেক বেশী। জার্মানরা সবচেয়ে বেশী খুশী হয়, যখন আমরা জার্মানে কথা বলি। সেটা ভিসা ইন্টারভিউতে আবেদনকারীর পক্ষে সিদ্ধান্ত যেতে বড় ভূমিকা পালন করতে পারে।

বাসা খুঁজতেঃ

এখন ভিসা পাবার জন্য বাসস্থান যোগাড় করা একটি পূর্বশর্তের মধ্যে পড়েছে। ইউনিভার্সিটির হোস্টেলে বাসা না পেলে বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই বেসরকারি আবাসনের খোঁজ শুরু করতে হয়। বাসা খুঁজতে সবচেয়ে বড় সাহায্য করে জার্মান ভাষার জ্ঞান। অনেক সময় জার্মান না জানা থাকলে বাড়িওয়ালারা বাসা ভাড়া দিতে আগ্রহী হন না। এবং এই চিত্র কিন্তু পড়াশোনা শেষ করার পরও ভিন্ন নয়।

চাকরী এবং ক্যারিয়ারঃ

প্রথমত জার্মান ভাষা শেখা থাকলে জার্মানিতে ছাত্র অবস্থায় চাকরি পাওয়া অত্যন্ত সহজ। এখানে পড়তে আসা ছাত্র ছাত্রীদের প্রায় সকলেরই প্রথম প্রশ্ন থাকে, জার্মানিতে এসে কি ঠিকমতো চাকরী পাওয়া যাবে কিনা। পড়ার মাধ্যম ইংরেজি হোক আর যাই হোক না কেন, জার্মানিতে আসতে চাইলে জার্মান শেখা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন। বিশেষ করে স্টুডেন্ট জব, বা পড়াশোনা পরবর্তী চাকুরি ক্ষেত্রে।

একটা গণিত অংকের মতন বোঝানোর চেষ্টা করি।

ধরা যাক জার্মানিতে মোট জবের সংখ্যা হল ১০০ টি। যারা শুধুমাত্র ইংরেজি জ্ঞান নিয়ে কাজ খুঁজবে, তাদের জন্য প্রথমেই ৯৮টি জব বাদ পড়ে যাবে।বাকি ২টি চাকরির জন্য তাদেরকে অন্যদের সাথে যুদ্ধ করতে হবে। এই জবগুলোর মধ্যে ভার্সিটির কিছু রিসার্চ জব বা আন্তর্জাতিক হাতেগোনা কিছু কোম্পানির নাম নেওয়া যেতে পারে। যারা জার্মান পারে না, তাদের কেউ কেউ হোটেলে অড জব করে। এদের আয় ঘন্টায় ৫-৬ ইউরোর মতন। আর জার্মান জানারা যেমন অতি সহজে চাকরী খুঁজে পায়, তেমনি বেশীরভাগ ক্ষেত্রে তাদের অায় অনেক বেশী। ঘন্টায় ৮ ইউরো+।

যেটা আসলে বলতে চাইছিঃ
জার্মান শিখে ১০০টি জব থেকে বাছাই করে ঘন্টায় অন্তত ৮ ইউরো উপার্জন করা বুদ্ধিমানের কাজ। বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই এটা আর অনেক বেশী। এবং এর জন্য যতটুকু কষ্ট করা দরকার জার্মান ভাষা শিখতে, সেটার ফল মিলবে- এই গ্যারান্টি ১০০ ভাগ!

স্থায়ী আবসন বা নাগরিকত্বঃ

জার্মানিতে পরবর্তিতে নাগরিকত্ব বা স্থায়ী আবাসন পেতে জার্মান ভাষা বিশেষভাবে জরুরী। সাধারণত এইসব ক্ষেত্রে ভাষার বি১ পরীক্ষা পাস করতে হয়। অনেক ক্ষেত্রে ভাল ভাষার দখল থাকলে স্থায়ী আবাসন এবং নাগরিকত্বের ক্ষেত্রে ১ বছর সময়সীমা কমিয়ে দেয়া হয়।

জার্মান ভাষা শেখার অনুপ্রেরণাঃ

জার্মান ভাষা শেখা শুধু শুধু নয়, তার পক্ষে বেশ কিছু যুক্তি আছে। এরমধ্যে কয়েকটি এখানে উল্লেখ করা হলঃ

১. জার্মান ভাষা ইউরোপীয়ান ইউনিয়নের সবচেয়ে বেশী ১২০ মিলিয়ন মানুষের মাতৃভাষা।
২. জার্মান ভাষা শুধু জামানী ছাড়াও  অস্ট্রিয়া, সুইজারল্যান্ড, লুক্সেমবুর্গ ও লিচেনস্টাইনের রাষ্ট্রীয় ভাষা।
৩. জার্মান বিশ্বের তৃতীয় গুরুত্বপূর্ণ ভাষা।
৪. জার্মান ইউরোপ এবং জাপানের দ্বিতীয় জনপ্রিয়তম ভাষা।
৫. জাপানের ৬৮% ছাত্র জার্মান ভাষা শেখে, কারণ প্রযুক্তিতে জার্মানির উপর তারা নির্ভরশীল।
৬. জার্মানীর অর্থনীতি বিশ্বের চতুর্থ বৃহত্তম, ইউরোপের প্রথম।
৭. জার্মানী ইউরোপীয় ইউনিয়নের মূল চালিকাশক্তি।
৮. জার্মান ভাষাভাষী প্রায় ১১০০ কোম্পানি আমেরিকায় ব্যবসা করে।
৯. বিশ্বের প্রতি ১০টা বই এর ১টি জার্মান ভাষায় প্রকাশিত হয়।
১০. ইন্টারনেটে .com এর পর .de সবচেয়ে জনপ্রিয় ডোমেইন।
১১. গাড়ি থেকে শুরু করে অনেক ফিল্ডের বড় বড় কম্পানি জার্মানীর। (উদাহরনঃ Volkswagen, BMW, Mercedes Benz, Audi, Bayer, Braun, BMW, Daimler, DHL, Lufthansa, Adidas, Puma, T-Mobile, Porsche, Siemens)।
১২. বিজ্ঞান ও প্রযু্ক্তিতে জার্মানী অদ্বিতীয়।
১৩. ৫০% আমেরিকান কোম্পানি জার্মান ভাষা জানা থাকলে অগ্রাধিকার দেয়। একই চিত্র দেখা যায় বিশ্বের অন্যান্য দেশেও।
১৪. নতুন আবিস্কারের ক্ষেত্রে পেটেন্ট সংখ্যার দিক থেকে জার্মানি বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম।
১৫. বিশ্বের প্রতি ১০টি প্রযুক্তিভিত্তিক কোম্পানির ৪টি জার্মানীর।
১৬. ট্রাভেল এজেন্সী, ট্যুর কম্পানী, হোটেল, এয়ারলাইন্স ইত্যাদি ক্ষেত্রে জার্মান ভাষা জানা থাকলে অতিরিক্ত সুবিধা পাওয়া যায়।
১৭. প্রায় ৫০ মিলিয়ন আমেরিকান জার্মান বংশোদ্ভূত। এখনও প্রায় ২ মিলিয়ন মানুষ আমেরিকায় জার্মান ব্যবহার করে।

লেখকঃ আদনান সাদেক

 #BSAAG_Learn_German


জার্মানিতে উচ্চশিক্ষা বা ক্যারিয়ার সংক্রান্ত প্রশ্নের জন্য যোগদিন বিসাগের ফেসবুক ফোরামেঃ www.facebook.com/groups/bsaag.reloaded
জার্মান ভাষা অনুশীলন এবং প্রশ্নোত্তের জন্য যোগ দিন ফেসবুকে বিসাগের জার্মান ভাষা শিক্ষা গ্রুপেঃwww.facebook.com/groups/deutsch.bsaag

এই সিরিজের অন্যান্য পর্ব

(কৃতজ্ঞতা স্বীকারঃ নাসের, গোয়েথে ঢাকা, শেষ অংশের তথ্য সংগ্রহের জন্য )

Print Friendly, PDF & Email