রহমতউল্লাহ এলো জার্মান দেশে

 

নরসিংদির ছেলে রহমতউল্লাহ। ধলির পাড় গ্রামে জন্ম, বড় হওয়া। প্রাইমারী স্কুলে থাকতে এক কেউকেটা টাইপ খালাত ভাই এসেছিল প্রতিবেশী রাবেয়াদের বাড়িতে। সে নাকি “জার্মান দ্যাশ থেইক্কা ডাকতর পাশ কইরা আইসে”। গ্রামশুদ্ধু সবাই উপচে পড়ল রাবেয়াদের বাড়ি। রহমতউল্লাহও গিয়েছিল। খালাত ভাইটিকে জিজ্ঞেস করতে উনি বলেন যে, না, উনি কোন ডাক্তার নন। উনি ইঞ্জিনিয়ার, কিন্তু কি জানি এক ডাক্তার-মার্কা ডিগ্রী উনার! “উরেব্বাপরে! ডাক্তারশুদ্ধা ইঞ্জিনিয়ার”। ওই হোল কাল। রহমতউল্লাহরও “ডাক্তারশুদ্ধা ইঞ্জিনিয়ার” হওয়া চাই।

গাজীপুরের রানী বিলাসমনি স্কুল থেকে ম্যাট্রিক, ঢাকা কলেজ থেকে ইন্টার পাশ করল আমাদের রহমতউল্লাহ। রেজাল্ট বেশ ভাল ছিল। ঢাকায় এসেই কার কাছ থেকে শুনে গোয়েথে ইন্সটিটিউটে ভর্তি হয়ে যায় সে। জার্মানটা একটু সড়গড় হয়ে যাক। আর কলেজ পাশ করেই দিল সে অ্যাপ্লাই করে জার্মানির ৫-৬টা ইউনিভার্সিটিতে। ভর্তি পরীক্ষাও দিল বুয়েট আর মেডিকেলে।

একদিন সকালের টিউশানি শেষ করে ফিরল বড় ফুপুর বাড়ি। ফুপা তার বুয়েটের স্টাফ, কোয়ার্টারে থাকেন। এইখানেই থাকে রহমতউল্লাহ গত তিন বছর ধরে। তার নামে বিদেশ থেকে একটা চিঠি এসেছে। ফুপাত ভাইয়ের বদঅভ্যাস, খুলে পড়ে ফেলেছে। আর সেই থেকে ফুপু একবার কাঁদছেন, একবার হাসছেন, তো আবার কাঁদছেন। জার্মানির কোন এক ইউনিভার্সিটিতে নাকি রহমতউল্লাহ অ্যাডমিশন পেয়েছে।

এরপর বাকি দিনগুলি বেশ ঝাপসা রহমতউল্লাহর কাছে। ঠিকমত জ্ঞ্যান হোল তার যেদিন সে এমিরেটস এর ফ্লাইটে করে রওনা হোল সেদিন। তাও আবার দুবাই পার হবার পর।

“কোন আক্কেলে যে শখ করসিলাম জার্মানি যাওয়ার? চিনি না জানি না এক দেশ।”

গাজীপুরের এক ভাই রিসিভ করল তাকে মিউনিখের ফ্রান্স জোসেফ স্ট্রাউস থেকে। একমাস ডাবলিং করে থাকা যাবে উনার সাথে। উনিও স্টুডেন্ট। কোন এক হোস্টেলে থাকেন। তারপর নাকি নিজেকেই একটা বাসার ব্যাবস্থা করে নিতে হবে। উনি বারবার মানা করছিলেন ব্যাচেলর শেষ না করে এদেশে আসতে। অনেক নাকি ঝামেলা। কাজ নাকি খুব একটা পাওয়া যায় না।

কি যে হবে?!

—————————————————

সুপ্রিয় বিসাগিয়ান,
এই ভাষা শেখার সিরিজটি আমাদের এই রহমতউল্লাহকে ঘিরে। ছোটখাট কথোপকথনের মাধ্যমে আমরা চেষ্টা করব আপনাদেরকে জার্মান ভাষার উপর জ্ঞ্যান দেয়ার।

তো তৈরি হয়ে যান কাগজ কলম আর ফ্ল্যাশ কার্ড নিয়ে। খুবই ভাল হয় যদি শুরু থেকে থাকতে পারেন। চেষ্টা করব, প্রতি সপ্তাহে একটা কুইজ নেয়ার।

~ শুভ কামনায়,
আপনাদের বিসাগ

Print Friendly, PDF & Email
Tanzeem Haque

Tanzeem Haque

নামঃ
তানযীম হক চারু

বর্তমান ঠিকানাঃ
মিউনিখ, জার্মানী

পেশাঃ
সরাসরি শিক্ষার্থী

তানযীম হক চারু
তানযীম হক চারু
বিসাগে যে বিভাগে কাজ করছেনঃ
জার্মান ভাষা শিক্ষা বিভাগ

এইচ,এস,সি / এ-লেভেল পাশের সালঃ
২০০২

বাংলাদেশে অর্জিত সর্বোচ্চ ডিগ্রীঃ
এইচ,এস,সি

জার্মানীতে কবে এসেছেনঃ
২০০৩

জার্মানীতে অর্জিত সর্বোচ্চ ডিগ্রীঃ
ব্যচেলর

জার্মানীতে কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়ন করেছেন/করছেনঃ
LMU, TUM

জার্মানীতে উচ্চশিক্ষার বিষয়ঃ
মেডিকেল, বায়োইনফরম্যাটিক্স

জার্মানীতে অধ্যয়নকালঃ
২০০৪-২০০৭, ২০০৮-বর্তমান

বিসাগে এযাবতকালে অবদানঃ

কিছু ভাষার পোস্টঃ
রহমতুল্লাহ এলো জার্মান দেশে
রহমতুল্লাহ এলো জার্মান দেশে – পেটে খিদা – পর্ব ১
রহমতুল্লাহ এলো জার্মান দেশে – শীত এলো বলে – পর্ব ১
রহমতুল্লাহ এলো জার্মান দেশে – ভবঘুরে – পর্ব ১
রহমতুল্লাহ এলো জার্মান দেশে – ভবঘুরে – পর্ব ২

শখঃ
অনেক অনেক অনেক। গীটার বাজানো, ছবি আঁকা, কবিতা লেখা, ইনডোর ক্লাইম্বিং, পাহাড় চড়া, স্কি করা, ব্যাকপ্যাকিং … আপাতত এই কটি মনে পড়ছে :-p

অন্যান্যঃ
এই মুহূর্তে…
Referentin des Gleichstellungsreferats der Studierendenvertretung der LMU
Jugendleiterin des Jugendrotkreuz,
Sanitäter,
Barchefin des Wohnheims,
বিসাগ
… জার্মান শব্দগুলোর বাংলা করতে পারলাম না।

নিজের কথাঃ
বলতে চাই না। বেশি বলা হয়ে যাবে 😀
Tanzeem Haque