জার্মানিতে অভিবাসীদের বাসায়ও জার্মান বলতে হবে!

 

এমন একটি দাবি করেছে জার্মানির জোট সরকারের একটি অংশ সিএসইউ৷ দলের সম্মেলনের জন্য তৈরি করা এক প্রতিবেদনে এই দাবি করা হয়েছে৷ সিএসইউ সদস্যরা এক বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেন৷

1

জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের দল সিডিইউ-র বাভারিয়া রাজ্যের সঙ্গী দল সিএসইউ৷ তাদের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘‘মানুষ (অভিবাসী) যাঁরা এখানে (জার্মানিতে) স্থায়ীভাবে থাকতে চায় তাঁদের প্রকাশ্যে এবং পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে জার্মান ভাষায় কথা বলতে হবে৷”

বিষয়টি নিয়ে জার্মানিতে ব্যাপক বিতর্ক তৈরি হয়েছে৷ সিএসইউ দলের মহাসচিব বলছেন, তাঁদের দাবির পেছনে অনেকের সমর্থন রয়েছে৷ তবে ম্যার্কেলের সিডিইউ দলের মহাসচিব বলেছেন, ‘‘আমি ঘরে লাতিন, ক্লিঙ্গন নাকি হেসিয়ান ভাষায় কথা বলব, সেটা নিয়ে রাজনীতিবিদদের মাথা ঘামানোর কিছু নেই৷”

এদিকে সাধারণ মানুষ প্রতিক্রিয়া জানাতে সামাজিক মাধ্যম বেছে নিয়েছে৷ টুইটারে #YallaCSU ব্যবহার করে তাঁরা টুইট করছেন৷ মজার ব্যাপার হচ্ছে, Yalla শব্দটি এসেছে আরবি ভাষা থেকে, যার অর্থ ‘চল যাই’!

দাবির প্রস্তাবক সিএসইউ দল বাভারিয়া রাজ্যে রাজনীতি করে৷ সেই রাজ্যের লোকেদের বলা জার্মান ভাষায় যে আঞ্চলিকতার টান রয়েছে, তা নিয়ে জার্মানিতে আগে থেকেই অনেক আলোচনা রয়েছে৷ সাপ্তাহিক পত্রিকা ‘ডি সাইট’ টুইটারে একটি জার্মান অভিধানের ছবি দিয়ে প্রশ্ন করেছে, ‘‘বাভারিয়ান ভাষাও কি জার্মান?”

2

একই রকম আরেকটি টুইট,

3

অনেক সামাজিক মাধ্যম ব্যবহারকারী সিএসইউ-র দাবির বিষয়ে হতাশা প্রকাশ করতে গিয়ে হাস্যরসের শরণাপন্ন হয়েছেন৷ যেমন এমিলি সেন্ট. ডেনি লিখেছেন, ‘‘প্রিয় সিএসইউ, আমি শুধুমাত্র তিনটি জার্মান শব্দ জানি৷ তাহলে কি আমি বড়দিন পালন করতে শ্বশুরবাড়ি যেতে পারব?”

4

জার্মানিতে বসবাসকারী ক্যানাডার এক নাগরিক মনে করেন, অভিবাসীদের নিয়ে রাজনীতি এবং তাঁদের নিয়ে জার্মানদের মনে যে ভয়, সেটা দূর করার একটা উপায় হতে পারে এই – আরও কম সময়ে বিদেশিদের নাগরিকত্ব দেয়া৷

5

এদিকে, ড. আনিয়া কে. পেটারস বিশ্ববাসীকে আশ্বস্ত করতে একটি টুইট করেছেন,

6

সিএসইউ-র দাবির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানানো আরেকটি টুইট:

7

উল্লেখ্য, সাম্প্রতিক একটি রিপোর্ট বলছে, জার্মানির সামাজিক সুরক্ষা কাঠামোয় বিদেশি অভিবাসীরা উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছেন৷ অর্থাৎ বিদেশিরা রাষ্ট্র থেকে যে সব আর্থিক সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করেন, তার তুলনায় অনেক বেশি কর দেন৷ শুধু ২০১২ সালেই বিদেশিরা জার্মানির সামাজিক সুরক্ষা তহবিলে প্রায় ২,২০০ কোটি ইউরো জমা দিয়েছেন৷ অর্থাৎ রাষ্ট্রের কাছ থেকে তাঁরা যে আর্থিক সুবিধা গ্রহণ করেছেন, সেই তুলনায় কর ও সামাজিক তহবিলে প্রদেয় অর্থ বাবদ তাঁরা মাথাপিছু প্রতি বছর প্রায় ৩,৩০০ ইউরো বেশি জমা দিয়েছেন৷

 

সংকলনঃ শফিকুর রহমান

সুত্রঃ ডয়েচ ভেলে বাংলা

Print Friendly, PDF & Email