• Home »
  • Agency-Hope-vs-Reality »
  • “WAY Education Consultancy-অজস্র স্বপ্ন নিয়ে ছিনিমিনি খেলে যারা

“WAY Education Consultancy-অজস্র স্বপ্ন নিয়ে ছিনিমিনি খেলে যারা

 

আজকে (২৭.০১.২০১৪) প্রথম আলোতে দেখলাম এই ভুয়া এজেন্সির (WAY Education Consultancy) বিজ্ঞাপন। মনে পরে গেল এক ভুক্তভোগীর কথা। সংক্ষেপে তাঁর ভাষায়ই বলছি। কারও সাথে এমন কিছু ঘটে থাকলে আমাদেরকে তা জানানোর অনুরোধ থাকলো।

অন্যান্য সকল এজেন্সির মত এদের প্রতারণার মূল ভিত্তি হল মিষ্টি মিষ্টি কথা। কনসালটেন্ট যারা আছেন তাদের মধ্যে একজনের নাম স্বর্ণা। চাপা কাকে বলে কত প্রকার ও কি কি কেউ যেন তাঁর কাছ থেকে শেখে। প্রতারণার পর ছাত্রদের ক্ষোভ ও চাপের জন্য বেশ অনেকদিন তাদের এজেন্সি বন্ধ ছিল। এখন আবার নতুন করে চালু হয়েছে, কে জানে হয়তো নতুন কোন ফন্দি নিয়ে। জার্মানি সম্পর্কে তাদের বক্তব্য হল ব্যাচেলর মাস্টার্স যা-ই করেন না কেন জার্মানি গিয়ে ভাষা শিখতেই হবে। তাঁর মানে তাঁরা language school এ ভর্তি করার নামে ৩৬০০ ইউরো (৩ লক্ষ্য ৬০ হাজার এর উপরে) নিবেই নিবে। কোন ছাড়া ছাড়ি নাই। কোর্স ইংরেজিতে হলেও IELTS ছাড়াই ভর্তি সম্ভব। কারণ জার্মানরা নাকি ইংরেজি পারে না আর আমাদের ইংরেজি শুনলে তাঁরা শ্রদ্ধায় নাকি মাথা নুয়ে দেয়। এখানেই সবাই ধরা খায়। একবার টাকা দিয়ে দিলে তাঁরপর তাদের কোন খবর থাকে না। মাসের পর মাস ছাত্ররা এজেন্সির পেছনে পেছনে ঘুরতে থাকে কি হল না হল জানার জন্য। আর তাঁরা নানা রকম টাল বাহানা শুরু করে। সবশেষে ফলাফল হয় ৩ রকম-

১. কিছু ছাত্রকে ১৫০০ ইউরোর language course এ language visa দিয়ে জার্মানি পাঠানো হয়। এদের বলা হয়- “আরে একবার জার্মানি ঢুকবেন তো নিজে নিজেই সব ব্যবস্থা করে নিতে পারবেন। language শেষ হলে নিজেই নিজের কোর্সে ভর্তি হতে পারবেন। আর কোন সমস্যা হলে আমাদের কত representative আছে (আসলে কেউই নাই), তাদের সাথে যোগাযোগ করলে তারাই সব ব্যবস্থা করে দিবে।” প্রমাণস্বরূপ তাঁরা কয়েকটা representative (বাঙ্গালী ছাত্র)-দের email address দিবে আর বলবে মেইল করতে। এটা আসলে তাদেরই খোলা email এবং যোগাযোগ করলে তারাই ছাত্র সেজে উত্তর দেয়। এম্বেসিতে interview এর আগে তাঁরা শিখিয়ে দেয় ছাত্রদের যে শুধু language শেখা আর জার্মানি ঘুরে দেখার জন্য তাঁরা apply করেছে। আসল কথা হল language visa নিয়ে জার্মানি যাওয়ার পর ভাষা শেখা শেষ হয়ে গেলে অবশ্যই দেশে ফিরতে হবে, কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার অনুমতি নাই। শুধুমাত্র student applicant visa এবং student visa তে সে অনুমতি আছে।

২. একবার টাকা দিয়ে দিলে অনেক ঘুরানোর পর কিছু ছাত্রদের এমন কিছু শর্ত শোনানো হয় যে তা শুনে ছাত্রদের মাথায় হাত। বলা হয় “এখন ভিসা পাওয়া অনেক কঠিন হয়ে গেছে, কয়েকদিন পর আর বিনা বেতনে ছাত্র নিবে না জার্মানি। আপনি IELTS দেন। আপনাকে 6.5 পেতেই হবে, নইলে কিছু হবে না। তখন টাকা ফেরত চাইলে বলা হয় যে একবার language school এ টাকা দিয়ে registration করা হয়ে গেলে পরে পুরো টাকা তাঁরা দেয় না। registration cancel করলে তাঁরা ৩০% টাকা কেটে রেখে বাকি টাকা ফেরত দিবে। আপনি চাইলে এখন ওই ফি বাদ দিয়ে বাকি টাকা নিতে পারেন।” তখন দোষ ধরতে চাইলে বলা হয় তাদের কোন দোষ নাই, তাঁরা তো চেষ্টা করেছেই। regulation কঠিন করেছে জার্মানি, এখানে তাদের তো কোন হাত নাই। আর এমন জানলে ছাত্ররা তাদের কাছে না আসতো, কে তাদের আসতে বলেছে। খুব খারাপ ব্যবহারের এক পর্যায়ে বলা হবে আপনি চাইলে পুলিশের কাছে যান, কোন সমস্যা নাই। তাদের নাকি বহুত চেনা জানা লোক আছে RAB ও পুলিশে। শেষে ওই ৩০% টাকা নিজেদের পকেটে রেখে বাকি টাকা দিয়ে তাড়িয়ে দেয়া হয়। পুলিশের ঝামেলায় আর কেউ যায় না, তাছাড়া টাকা নেয়ার আগে একটা contract পেপারে সাক্ষর নেয়া হয় যেখানে বেশ কিছু hidden term আছে। এগুলো তাদের ভণ্ডামিকেই সমর্থন করা শর্ত।

৩. কিছু ছাত্র আছে তাদের কথামত IELTS দিতে দিতে অস্থির। এদের অবস্থা আরও খারাপ। কোনভাবেই 6.5 আসে না। কারণ আসলে অপেক্ষাকৃত দুর্বল ছাত্ররাই এজেন্সির কাছে যায় আর তাঁরা সেটা ভাল করেই জানে। তাই এই টোপখানা গেলানো হয় যাতে একবার ফাঁদে পরে গেলে শেষ রক্ষা নাই। যারা ভাল score পায় না, তাদেরকে নিয়ে শুরু হয় blame করা। “আপনি ভাল score তুলতে পারেন না, জার্মানি কি পড়াশোনা করবেন? আপনি তো কোন দেশেই apply করার যোগ্য না…ইত্যাদি।” তখন বাঙ্গালীদের ইংরেজি শুনে জার্মানদের মাথা নোয়ানোর কথা বেমালুম ভুলে যাওয়া হয় ও অস্বীকার করা হয়। এতে ছাত্রদের মনোবল নষ্ট হয়ে যায়। তাঁরা ভাবে তাদের দিয়ে আর কিছু হবে না। শেষ পর্যন্ত তাঁরা language course এর টাকা ফেরত চাইলে ওই ৩০% কাহিনী শোনানো হয়। এরা বাকি টাকা ফেরত নিয়ে ও বার বার IELTS পরীক্ষা দেয়ার expensive exam fee এর মাশুল মাথায় নিয়ে চুপ হয়ে যেতে বাধ্য হয়।

এভাবেই হাজার হাজার ছাত্ররা এজেন্সিদের বিভিন্ন পরিকল্পনামাফিক প্রতারণার শিকার হচ্ছে। এখানে তো শুধু জার্মানি (১টা দেশ) নিয়ে WAY Education এর প্রতারণা (তাও মাত্র ৩ প্রকার, আরও আছে) বলা হল। অন্যান্য সকল দেশ নিয়ে তাদের সকল প্রতারণা লিখতে গেলে সেটা আমার পূর্বের কথামত আর “সংক্ষেপে” বলা সম্ভব না। Moreover এরা জাতীয় দৈনিকে বিজ্ঞাপন দিচ্ছে অথচ বানান পর্যন্ত ভুল (Intake কে লেখা হয়েছে Intek, see red circle)।

2014_01_27_4_10_b
সময় থাকতে সচেতন হউন। ফাঁদে পা দিয়ে নিজের পরিবারের কষ্টার্জিত অর্থ, নিজের শিক্ষাজীবনের মূল্যবান সময়, নিজেকে মানসিক কষ্টের কাছে আত্মসমর্পণ এবং পরিবার ও আত্মীয়স্বজনদের সামনে অথর্ব প্রমাণ করার কি কোন মানে হয়?

Say “NO” to Agency…

সম্প্রতি একুশে টিভিতে এজেন্সিদের প্রতারণা নিয়ে একটি সাহসিক প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে। সেটার ভিডিও লিঙ্ক এখানেঃ ফেসবুক লিঙ্ক   ইউটিউব লিঙ্ক

Print Friendly