ফাখহোখশুলে কোলোন

 

‘ফাখহোখশুলে কোলোন’ বা কোলোনের ‘ইউনিভার্সিটি অফ অ্যাপ্লাইড সায়েন্সেস’ জার্মানিতে এই ধরনের বৃহত্তম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান৷

অন্যান্য ফাখহোখশুলেগুলোতে পড়াশোনার বিষয় যেমন ৮-১০ টি বিষয়ে সীমাবদ্ধ – সেই তুলনায় ফাখহোখশুলে কোলোনে আছে ৪৫ টি বিভিন্ন বিষয় নিয়ে পড়াশোনা করার সুযোগ৷ দেশী বিদেশী ছাত্র-ছাত্রী সব মিলিয়ে ফাখহোখশুলে কোলোনে আছে ১৮ হাজার ছাত্র-ছাত্রী৷ ৯৩ টি বিভিন্ন দেশ থেকে প্রায় ৩০০০ হাজার বিদেশী ছাত্র-ছাত্রী পড়াশোনা করছে এখানে৷ এই বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনায় নিয়োজিত আছেন ৪৫০ জন প্রফেসর৷

ফাখহোখশুলে কোলোনে গ্র্যাজুয়েশন, ডিপ্লোমা এবং মাস্টার্স করার ব্যবস্হা আছে৷ এর আগেও আপনাদের জানিয়ে দিয়েছি গ্র্যাজুয়েশন এবং ডিপ্লোম কোর্সগুলো সাধারণত ৮ থেকে ১০ সেমিস্টার অর্থাৎ ৪ থেকে ৫ বছর পর্যন্ত সময় নেয়৷ এখানে মনে রাখতে হবে, জার্মানিতে ‘ডিপ্লোম’ হল এক ধরণের ডিগ্রি, যা মাস্টার্সের আগের পর্যায়ে পাওয়া যায় – অর্থাৎ জার্মান ‘ডিপ্লোম’ আর ইংরাজি ‘ডিপ্লোমা’ এক নয়৷ গ্র্যাজুয়েশন এবং ডিপ্লোমের মধ্যে পার্থক্য হচ্ছে এই যে গ্র্যাজুয়েশন সাধারণত ৪ বছরের কোর্স এবং এই কোর্সটি শেষ হয় ফাইনাল পরীক্ষা এবং একটি থিসিস পেপার জমা দিয়ে৷ ডিপ্লোম ৫ বছরের কোর্স এখানে পরীক্ষার সংখ্যা তুলনমূলকভাবে বেশী এবং সবশেষে এখানেও একটি থিসিস পেপার জমা দিতে হয়৷ এই ৫ বছরের মধ্যে কিন্তু মাস্টার্স পড়ছে না৷ জার্মানির পড়াশোনার ধারা অনুযায়ী একজন গ্র্যাজুয়েট এবং একজন ডিপ্লোমাধারী মধ্যে তুলনা করতে গেলে ডিপ্লোমার ওপর প্রাধান্য দেয়া হবে বেশী৷ফাখহোখশুলে কোলোন বিজ্ঞান ভিত্তিক বিষয়ে পড়াশোনা এবং গবেষণার ওপর গুরুত্ব দিয়ে থাকে বেশী৷

পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষানবিশ হিসেবে কাজ করার জন্য সারা জার্মানির ৮০ হাজার কোম্পানির সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছে এই বিশ্ববিদ্যালয়টি৷ ছাত্র-ছাত্রীদের কম্পিউটিং, ইঞ্জিনিয়ারিং, মিডিয়া ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয়ে শিক্ষানবিশ হিসেবে কাজ করার ব্যবস্হা বিশ্ববিদ্যালয় নিজেই করে দেয়৷

চলুন, এবার দেখা যাক কি কি বিষয় নিয়ে ফাখহোখশুলে কোলোন পড়ার সুযোগ দিচ্ছে৷ অটোমোশন সিস্টেম, ইলেকট্রনিক্স, ইঞ্জিনিয়ারিং, কম্পিউটিং, আন্তর্জাতিক ব্যবসা, মানবিক এবং বিজ্ঞান বিভাগের বিভিন্ন বিষয় এবং মিডিয়া তো আছেই৷ বলা যেতে পারে, বিজ্ঞান ভিত্তিক বিষয়ের জন্য ফাখহোখশুলে কোলোন বিশেষ পরিচিতি লাভ করেছে৷ এসব বিষয় গুলোতে গ্র্যাজুয়েশন, ডিপ্লোমা এবং মাস্টার্স করা সম্ভব৷

আমরা কথা বলেছি ফাখহোখশুলে কোলোনের একজন ছাত্র মাহমুদ খানের সাথে৷ ২৯ বছর বয়স্ক মাহমুদ খান ফাখহোখশুলে কোলোনে কম্পিউটার সায়েন্স বিষয় নিয়ে পড়াশোনা করছেন৷

মাহমুদ প্রথমে ভর্তি হয়েছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ে কিন্তু সেখান থেকে তিনি চলে আসেন ফাখহোখশুলে কোলোন৷ কারণ হিসেবে তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে তাত্ত্বিক জ্ঞানের ওপর জোর দেয়া হয় বেশী৷ ব্যবহারিক দিকটির দিকে নজর একেবারেই দেয়া হয় বলা যায়৷ বলা হয় বাড়ীতে নিজে নিজে করতে যা প্রায় অসম্ভব৷ কম্পিউটিং সায়েন্স বিষয়ে সাহায্যের প্রয়োজন হয় তা বলার অপেক্ষা রাখে না৷ ফাখহোখশুলে কোলোনে ব্যবহারিক দিকটির ওপর জোর দেয়া হয় বেশী সেকারণেই তিনি বিশ্ববিদ্যালয় ছেড়ে এখানে ভর্তি হয়েছেন৷ এখানে গ্রুপ ওয়ার্কের মাধ্যমে তিনি তার প্রজেক্টগুলো শেষ করছেন৷

গ্রুপ ওয়ার্ক পড়াশোনার ক্ষেত্রে খুবই জরুরী৷ ক্লাসে কি পড়ানো হল তা নিয়ে ছাত্র-ছাত্রীরা প্রায় প্রতিদিনই গ্রুপ স্টাডিতে বসে৷ তাতে করে পড়া অনেক এগিয়ে যায়৷ বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে৷ গ্রুপ স্টাডির সুবিধা প্রসঙ্গে মাহমুদ খান জানান অধ্যাপকরা প্রায়ই ছোট ছোট প্রজেক্ট দিয়ে থাকেন এবং সেই সব প্রজেক্ট শেষ করার জন্যও সময় বেধে দেন৷ তা সাধারণত ১০ থেকে ১৪ দিনের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে৷ এই সময়ের মধ্যেই তা শেষ করতে হয় এবং তা ক্লাসে প্রেজেন্ট করতে হয়৷ প্রতিটি গ্রুপে সাধারণত ৩-৪ জন ছাত্র-ছাত্রী থেকে৷ সবাইকেই সমানভাবে অংশগ্রহণ করতে হয়৷ প্রতিটি সেমিস্টারে অন্তত ৭-৮ টি ছোট ছোট প্রজেক্ট শেষ করতে হয়৷

এর আগেও আমরা জানিয়েছি জার্মানিতে পড়াশোনার মাধ্যম হচ্ছে জার্মান ভাষা৷ তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে ইংরেজী ভাষাটি ব্যবহার করা হয়৷ মাহমুদ খানকে প্রশ্ন করা হয়েছিল তিনি কোন ভাষায় পড়াশোনা করছেন, বিদেশী একটি ভাষায় পড়াশোনা করতে কতটা অসুবিধা হয়েছিল৷ তিনি জানান প্রথম প্রথম বেশ অসুবিধা হয়েছিল এরপর তিনি এক বছরের একটি কোর্স করেন৷ ধীরে ধীরে ভাষাটিকে তিনি আয়ত্ব করেন৷ এখন কোন সমস্যাই নেই৷

মাহমুদ খান পুরোপুরি নয় – আংশিক বৃত্তি ও কিছুটা ঋণ পেয়েছেন জার্মান সরকারের কাছ থেকে যা ‘বাফোগ’ নামে পরিচিত এবং একই সাথে তিনি কাজও করছেন৷ এভাবেই চালাচ্ছেন তার পড়াশোনার খরচ৷ তিনি বলেন পড়াশোনার পাশাপাশি কাজ করা যায় কিন্তু পড়ার চাপ এত বেশী থাকে যে সব সময় কাজ করাও যায় না৷ তারপরেও তিনি কাজ করেন৷ প্রতি সেমিস্টার ফি হচ্ছে ১৫০ ইউরো অর্থাত্ প্রায় ৮ হাজার ১০০ রুপি বা ১১ হাজার ৭০০ টাকা৷ এই খরচটুকু তিনি নিজেই বহন করেন৷ এছাড়াও তিনি জার্মান সরকারের কাছ থেকে আংশিক বৃত্তি পেয়েছেন Bafoeg নামক বৃত্তি প্রদানকারী সংগঠন থেকে৷
University of Applied Sciences Cologne ফাখহোখশুলে কোলোনে আবেদন পত্র পাঠানোর ঠিকানা
C/O uni-assist e৷V৷
Helmholtzstr 2-9
D- 10587 Berlin
GERMANY

প্রতিবেদন মারিনা জোয়ারদার
সূত্রঃ  DW.de
Print Friendly
Adnan Sadeque
Follow me

Adnan Sadeque

লেখকের কথাঃ
http://bsaagweb.de/germany-diary-adnan-sadeque

লেখক পরিচয়ঃ
http://bsaagweb.de/adnan-sadeque
Adnan Sadeque
Follow me