কেমনিটজ: “আধুনিকতার শহরে” পড়াশোনা

 

কেমনিটজ শহর মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং,অটোমোটিভ সাইন্স এবং মাইক্রোসিস্টেম টেকনোলোজির একটি কেন্দ্রস্থল।ইন্ডাস্ট্রিয়াল সংস্কৃতির দীর্ঘ ঐতিহ্য উল্লেখযোগ্যভাবে এই শহরকে “আধুনিকতার শহরে” রুপান্তর করেছে। এখানে TU কেমনিটজ এবং এর গবেষণা প্রতিষ্ঠান সমূহে  আপনি একাডেমিক এবং গবেষণা করার চমৎকার সুবিধা পাবেন।

কেমনিটজ ইউনিভার্সিটি

কেমনিটজ ইউনিভার্সিটি

শহরের চমৎকার আবহাওয়া মণ্ডল এবং কম ভাড়ার জন্য, এটি অধ্যয়ন করার জন্য আদর্শ একটি জায়গা।কেমনিটজ,স্যাক্সনি রাজ্যের বড় একটি শহর, যা  Erzgebirge (আকরিক পর্বতমালা) এর কেন্দ্রীয় উচ্চভূমি অঞ্চলের কাছাকাছি অবস্থিত।এর সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে চলা শিল্প সংস্কৃতি এখনও ঠিক আগের মতই রয়েছে। কেমনিটজ শহর মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং,অটো ইন্ডাস্ট্রি ও মাইক্রোসিস্টেম টেকনলোজির জন্য সুপরিচিত।বেশিরভাগ গবেষণা কার্যক্রম Technische Universität (TU) কেমনিটজ এ হয়ে থাকে।এমনকি এর প্রতিষ্ঠানের বেশ কিছু মর্যাদাপূর্ণ জার্মান “এক্সেলেন্স ইনিশিয়েটিভ” এর অন্তর্গত। এছাড়াও বেশ কিছু সুপরিচিত Fraunhofer ইনস্টিটিউট,গবেষকদের জন্য কর্মসংস্থানের ব্যাবস্থা করে।

কেমনিটজ শহরের তথ্য এবং পরিসংখ্যানঃ

অধিবাসীঃ ২৪১,০০০ জন

শিক্ষার্থীঃ ১০,৭০০ জন

বিশ্ববিদ্যালয়ঃ ১টি

মাসিক ভাড়াঃ ২১১ ইউরো।

ওয়েবসাইটঃ www.chemnitz.de

১৯৯০ সালে জার্মান পুনর্মিলনীর আগ পর্যন্ত, কেমনিটজকে কার্ল মার্কস শহর বলা হতো। আজ শহরের সবচেয়ে বিখ্যাত দর্শনীও বস্তুর একটি হল, এক দার্শনিকের মাথার একটি প্রকাণ্ড ভাস্কর্য।ভাস্কর্যটি শহরের মাঝখানে প্রদর্শন করানোর জন্য বসানো আছে।কেমনিটজের অধিবাসীরা সাধারণত একে “Nischel” বলে ডাকে- স্যাক্সনীর ভাষায় যার অর্থ “মাথা”।এর উচ্চতা সাত মিটার,ব্রোঞ্জের এ ভাস্কর্যটিকে Sphinx এর পরে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম পোর্ট্রেইট ভাস্কর্য হিসেবে ধরা হয়।

Karl Marx monument

কার্ল মার্ক্স সৃতি-স্তম্ভ

কেমনিটজ একটি শ্রমিকশ্রেণীর শহর, এর খুবই ঘটনাবহুল ইতিহাস এখনও এর প্রমান বয়ে বেড়ায়।অর্থনৈতিক অস্থিরতার কারণে হাজার হাজার মানুষ চাকরী হারিয়ে ছিল,GDR এর সমস্যার কারণে এটি হয়েছিল।কিন্তু তারপর থেকে, শহর যখন আবার এর কর্মচঞ্চল অবস্থায় ফিরে যায় তখন আবার উন্নতি করতে থাকে।শহরে এখনও অনেক ফ্ল্যাট খালি আছে ,যে কারণে ভাড়া খুবই কম।সাশ্রয়ী এবং চমৎকার একটি ফ্ল্যাট খুঁজে পাওয়া খুব একটা কঠিন না। আপনি এ শহরের শিল্প ইতিহাস সম্পর্কে আরও জানতে পারবেন Industriemuseum জাদুঘরে।বাষ্প চালিত ইঞ্জিন এবং অনেক অন্যান্য প্রদর্শনী ছাড়াও, আপনি বিখ্যাত Trabi দেখতে পারেন।এই ঐতিহাসিক গাড়ী মূলত কেমনিটজ শহরে ডেভেলপ করা হয়েছিল এবং সাবেক GDR এর রাস্তায় অধিপত্য বিস্তার করেছিল।

Industry museum

ইন্ডাস্ট্রি মিউজিয়াম

শহরের কেন্দ্র গত বিশ বছর ধরে সম্পূর্ণরূপে পুনরায় ডিজাইন করা হয়েছে।আপনি এখন সিটি হলের সামনের বাজারে , আধুনিক শপিং সেন্টার এবং অফিস ভবন দেখতে পাবেন।আকর্ষণীয় সব ভবনের সংস্পর্শে কেমনিটজ নিজেকে গর্বের সাথে “আধুনিকতার শহর” হিসাবে উপস্থাপন করে।উদাহরণস্বরূপ “Stadtbad” (municipal indoor pool), বিখ্যাত Bauhaus স্টাইলে নির্মিত এবং অবশ্যই দেখার মতো একটি জায়গা।আপনি এখানে একসাথে ব্যায়াম করতে এবং ঘুরে বেড়াতে পারবেন।

কেমনিটজ শহরে বসবাস:

কেমনিটজ শহরের জীবনধারা শহরের কেন্দ্রে সঞ্চালিত হয়।এখানেই আপনি  অনেক পাব এবং বারের সন্ধান পাবেন।শহর হল থেকে জুড়ে “Turmbräuhaus” রয়েছে। Reichenhainer Strasse এর ক্যাম্পাস সেসব শিক্ষার্থীদের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ যারা প্রায়ই ক্লাসের পরে স্টুডেন্ট ক্লাবসমূহে অংশগ্রহণ করে।আপনি বিশেষ করে Club der Kulturen তে আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের সমাগম দেখতে পাবেন।প্রধান ট্রেন স্টেশনের কাছে “Brühl” এ,আপনি অনেক সুন্দর এবং আকর্ষণীয় ক্যাফে, বিভিন্ন ধরনের দোকান পাবেন।

Town hal

টাউন হল

Theaterplatz এ গ্রীষ্মকালে জনপ্রিয় Film Nights হয়ে থাকে।সেখানে আপনি আপনার বন্ধুদের সঙ্গে দেখা করতে পারেন এবং খোলা আকাশের নিচে বড় পর্দায় সর্বশেষ মুক্তি পাওয়া সিনেমা দেখতে পারেন।Museum Gunzenhauser কেমনিটজের খুবই বিখ্যাত একটি জাদুঘর, এখানে বিখ্যাত সব চিত্রশিল্পীর বিভিন্ন শিল্পকর্ম রয়েছে। এটি এবং König Albert জাদুঘর অবশ্যই পরিদর্শন করা উচিত।আমরা Theaterplatz এর অপেরাতে যেতে বলবো। শিক্ষার্থী হিসেবে, আপনি সাধারণত অপেরা এবং ব্যালেট টিকেটে ছাড় পাবেন। আবহাওয়া যখন চমৎকার থাকে তখন কেমনিটজের অনেক বাসিন্দা “Schlossteich”এ সময় কাটাতে পছন্দ করে, এটি শহরের কেন্দ্র থেকে কিছুটা উত্তরদিকে অবস্থিত পার্কের মধ্যের একটি লেক।এখানে আপনি গ্রীষ্মকালে আড্ডা দিতে পারেন,বন্ধুদের সাথে দেখা করতে পারেন বা একটি বাইচের নৌকা ভাড়া নিতে পারেন।শহরের উত্তর কোণে অবস্থিত Küchwald অনেক বড় বিনোদনমূলক একটি এলাকা। আপনি যদি জগিং করতে চান তাহলে,পার্কের অনেক বিস্তৃত রাস্তা আছে দৌড়ানোর জন্য।

ডমিনিক ব্রুগেমান এর  টিপস

কেমনিটজ নদীর বাতাস শহরের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়।সিটি পার্ক নদীর উভয় পাশে বিস্তৃত।বিশ্ববিদ্যালয়ে সারাদিন কাটানোর পর, এটি বিশুদ্ধ বাতাসে দীর্ঘশ্বাস নেয়ার জন্য দারুণ একটি জায়গা।এটি সাইকেলে করে ঘুরে বেড়ানোর জন্য এবং শহর সম্পর্কে আরও ভালভাবে জানার জন্যও দারুণ একটি জায়গা।

আর্মেনিয়ার আরপিনের সঙ্গে ডমিনিক ব্রুগেমানের  সাক্ষাৎকারঃ

২৫ বছর বয়সী  আরপিন নাজারিয়ান আর্মেনিয়া থেকে এসেছেন এবং কেমনিটজে European Studies বিষয়ে তার ব্যাচেলর সম্পন্ন করেছেন।আর্মেনিয়া থেকে আরপিন © Arpine Nazaryan

Arpine from Armenia

আরমেনিয়ার আরপাইন

ডমিনিকঃ আপনি কেন কেমনিটজে অধ্যয়ন করার সিদ্ধান্ত নেন?

আরপিনঃ এটার কারণ হল TU কেমনিটজের “ইউরোপীয়ান স্টাডিজ” বি.এ. প্রোগ্রামের বিষয়বস্তু এবং কাঠামো।বিশ্ববিদ্যালয়ের খুব ভাল খ্যাতি রয়েছে, সবাই খুব আন্তরিক এবং অধ্যাপকরাও শিক্ষার্থীদের সাথে খুবই আন্তরিক।এগুলোই কেমনিটজকে অধ্যয়নের জন্য বেছে নেওয়ার প্রধান কারণ ছিল।

ডমিনিকঃ আপনি কিভাবে জার্মানিতে থাকার জন্য প্রস্তুতি নিয়েছিলেন?

আরপিনঃ যখন আমি আমার অফার লেটার পেলাম তখন, আমি স্টুডেন্ট ভিসার জন্য আবেদন করি এবং আমার জার্মানিতে প্রয়োজন হতে পারে এমন সব নথি-পত্র সংগ্রহ করতে শুরু করে দিই।এর পরে আমি কেমনিটজের Studentenwerk সাথে যোগাযোগ করি এবং বসবাসের জন্য স্টুডেন্ট হলে একটি রুমের জন্য রেজিস্ট্রেশন করে রাখি।সবকিছু ঠিকমতো হয়ে যাওয়ার পর,আমার শুধু ব্যাগ গুছানো বাকি ছিল এবং সবশেষে এখানে চলে আসি!

ডমিনিকঃ বিদেশী ছাত্রদের জার্মানিতে পড়াশোনা করতে আসার আগে কিসের প্রতি বেশি খেয়াল রাখতে হবে?

আরপিনঃ জার্মান ভাষা নিয়ে যাদের সমস্যা আছে, আমি তাদের জার্মানিতে অধ্যয়ন করতে আসার আগে একটি ইন্টেনসিভ ভাষা কোর্স করে আসতে বলবো।এটা আপনার পার্ট-টাইম জব পাওয়ার ক্ষেত্রেও খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে।সবাই অতটা ভাগ্যবান হয়না যে, এসেই ভালো একটা পার্ট-টাইম জব পেয়ে যাবে, তাই আপনাকে প্রথম বছরের জন্য যথেষ্ট টাকা-পয়সা সঙ্গে আনতে হবে।বিদেশী শিক্ষার্থীরা জার্মানিতে আসার আগে TU কেমনিটজের “Patenprogramm” (স্পন্সরশীপ প্রোগ্রাম) এর সাথে যোগাযোগ করে অতিরিক্ত সহায়তার জন্য আবেদন করতে পারেন।

Theatre

থিয়েটার

ডমিনিকঃ শুরুরদিকে জার্মানিতে বসবাসের জন্য আপনার কাছে সবচেয়ে কঠিন বিষয় কি ছিল ? এবং আপনি কিভাবে এটির সাথে মোকাবেলা করেছেন?

আরপিনঃ আমার পরিবার এবং বন্ধুদের সবাই আর্মেনিয়াতে ছিল এবং আমি জার্মান শিক্ষার্থীদের মত সাপ্তাহিক ছুটির দিনে তাদের  সাথে দেখা করতে যেতে পারতাম না। প্রথম সেমিস্টারে এটা সত্যিই খুব কঠিন ছিল।কিন্তু তারপর আমি অপেক্ষাকৃত দ্রুত খুব ভাল বন্ধু তৈরি করে ফেলি এবং কেমনিটজের অন্যান্য অনেক চমৎকার মানুষের সাথে পরিচিত হতে শুরু করি যারা সবসময় আমার পাশে ছিল।

ডমিনিকঃ কিভাবে আপনি বাসস্থানের জায়গা খুঁজে পেয়েছিলেন ? অন্যান্য শিক্ষার্থী যারা বাসস্থান খুঁজছেন তাদের জন্য আপনার কোন পরামর্শ আছে?

আরপিনঃ আমি পূর্বেই উল্লেখ করেছি যে,  আমি সরাসরি কেমনিটজের Studentenwerk সাথে যোগাযোগ করেছিলাম। তারা অত্যন্ত সহায়ক এবং সাধারণত আপনার থাকার জন্য স্টুডেন্ট হলে একটি রুম ঠিক করে দেয়। অন্যথা, আপনি wg-gesucht.de ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন চেক করে কেমনিটজের মধ্যে ফ্ল্যাট খুঁজে পেতে পারেন।

Schlossteich lake

শ্লস্ঠাইস লেক

ডমিনিকঃ বিশেষ করে কেমনিটজের কোন বিষয়টা আপনার পছন্দ ?

আরপিনঃ ক্যাম্পাসটি এর খেলার মাঠ, লন,ছোট স্টুডেন্ট ক্লাবগুলোর সঙ্গে খুবই সুন্দর, এবং ক্যাম্পাসের আমার পরম প্রিয় জায়গা হল বিশ্ববিদ্যালয় সিনেমা। কিন্তু Schlosspark, সিটি পার্ক বা Kassberg  কোয়ার্টারের মধ্য দিয়ে হাঁটতে যাওয়া এর চমৎকার বিকল্প।

ডমিনিকঃ কেন ছাত্রদের জন্য কেমনিটজ ভাল?

আরপিনঃ কেমনিটজের বসবাস খরচ অত্যন্ত সাশ্রয়ী। তাই আপনার এখানে বসবাস করতে অনেক টাকার প্রয়োজন হবে না। আপনার ছাত্র টিকেট দিয়ে, আপনি ট্রেনে করে লিপজিগ বা ড্রেসডেনে এক ঘন্টার মধ্যে পৌঁছাতে পারবেন।আরো বলতে গেলে , বিশ্ববিদ্যালয়টি সত্যিই খুব ভালো, অন্তত আমার বিষয়ের ক্ষেত্রে। এবং এখানে আপনি সত্যিই আপনার পড়াশোনা মনোযোগ দিয়ে করতে পারেন, এখানে আপনি বার্লিনের চেয়ে খুব কম বিভ্রান্ত হবেন, উদাহরণস্বরূপ, এটি একটু নীরব, কিন্তু এরপরও আমি এখানে অনেক চমৎকার মানুষের সাথে পরিচিত হয়েছি।

 

সুত্রঃ study-in.de

অনুবাদকঃ সাজেদুর রহমান, রাজশাহী

 

Print Friendly