Block Account – কি, কেন, কোথায়, কিভাবে…

 

ব্লক একাউন্টের নাড়ি নক্ষত্র, একসাথে সকল প্রশ্নের উত্তর……

সুচিপত্র-

১) ব্লক অ্যাকাউন্ট কি, এইটা কি কোন চতুষ্কোণী বস্থু?
২) কেন এই ব্লক অ্যাকাউন্ট, কি এর বিশেষ উদ্দেশ্য?
৩) ব্লক অ্যাকাউন্ট খুলতে কত টাকা জমা দিতে হয়, কত টাকা জমা(ব্লক) রাখতে হয়?
৪) কোথায় খুলব ব্লক অ্যাকাউন্ট?


৫) ব্লক সার্টিফিকেট কি?
৬) কিভাবে পাব ব্লক সার্টিফিকেট?
৭) কিভাবে খুলব ব্লক অ্যাকাউন্ট?
৮) ফর্মে কোথায় কি লিখব, একটা স্যাম্পল দেন?
৯) ফর্ম পাঠানোর কয়দিন পর আমি আমার ব্লক অ্যাকাউন্টের তথ্য পাব?
১০) Deutsche Bank আমার ফর্ম তাদের অফিসে পৌঁছানর পর কি কোন confirmation email দেয়?
১১) আমার অ্যাকাউন্ট আর তথ্য পেয়ে গেলাম, এখন কি?
১২) কোন কোন ব্যাংকে ব্লক অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠাতে পারে, একটু বলেন?
১৩) ব্যাংকে গিয়ে কি বলব, কি বললে লাভের থেকে ক্ষতি হবে বেশি?
১৪) Student-File খোলা লাগবে, কি কি কাগজপত্র জমা দিতে হবে?
১৫) Student-File খোলার জন্য কেমন খরচ হবে?
১৬) টাকা পাঠিয়ে দিলাম, তারপর?
১৭) আমি যে টাকাটা ব্লক করলাম ওটা কি মাইর না তোলা যাবে?
১৮) ভিসা হবার পর পুর ব্লক করা টাকা তুলে নিতে পারবো?
১৯) বাংলাদেশের কোন ব্যাংকে কি ব্লক অ্যাকাউন্ট করা যাবে?
২০) আমি যদি “ক” বিশ্ববিদ্যালয়ের admission letter দিয়ে ব্লক অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠাই, কিন্তু “খ” অথবা “গ/ঘ” বিশ্ববিদ্যালয়ে যাই তাহলে কি সমস্যা হবে?
২১) আমি যদি “ক” বিশ্ববিদ্যালয়ের admission letter দিয়ে ব্লক অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠাই, কিন্তু “খ/গ/ঘ” বিশ্ববিদ্যালয়ে্ যেতে চাই এবং “খ/গ/ঘ” বিশ্ববিদ্যালয়ের admission letter দিয়ে ভিসা সাক্ষাৎকার দিতে চাই, তাহলে কি সমস্যা হবে?
২২) আমাকে যদি আমার চাচা/মামা/ফুপা/খালু/খালা ইত্যাদি স্পন্সর করেন তাহলে কি আমার ব্লক অ্যাকাউন্ট এর প্রয়োজন আছে?

আমরা গ্রপে প্রায় দেখি যে ব্লক অ্যাকাউন্ট নিয়ে একই প্রস্ন বারবার করা হয়। অনেকেই এই ব্লক অ্যাকাউন্ট নিয়ে আতঙ্ক উৎকণ্ঠায় ভুগছেন, কেউ কেউ আবার চিন্তায় ঘুমাতে পারছেন না। আপনাদের এই উতকন্থা, দুশ্চিন্তা দূর করতে আজকে আপনাদের সর্ব আলোচিত প্রশ্নগুলোর উত্তর দিয়ে এই প্রবন্ধটি প্রকাশ করা হল।

আসুন তাহলে, এক নজরে দেখে নেই ব্লক অ্যাকাউন্ট আর বিস্তারিত।

১) ব্লক অ্যাকাউন্ট কি, এইটা কি কোন চতুষ্কোণী বস্থু?

উত্তরঃ ব্লক অ্যাকাউন্ট একটি বিশেষ ধরণের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট/হিসাব যা একটি বিশেষ উদ্দেশ্য সাধনে খোলা হয় একটি বিশেষ পরিমাণ কিছু বিশেষ শর্তে জমা রাখা হয়। জার্মানি শিক্ষার্থী ভিসা আবেদনকারীদের জন্য এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ শর্ত যা ভিসা সাক্ষাৎকার (visa interview) এর আগে পুরণ করতে হয়।

২) কেন এই ব্লক অ্যাকাউন্ট, কি এর বিশেষ উদ্দেশ্য?

উত্তরঃ এই ব্লক অ্যাকাউন্ট আর উদ্দেশ্য হল একজন শিক্ষার্থী জার্মানি থাকা অবস্থায় প্রথম বসর এর থাকা, খাওয়া, বেক্তিগত খরচ এবং পড়ালেখার টুকিটাকি খরচ নিশ্চিত করা। এতে সুবিধা হল, একজন শিক্ষার্থী যেন তার প্রধান লক্ষ, পড়ালেখা, বাদ দিয়ে তার খরচ জোগান দেবার জন্য হন্ন হয়ে কাজ/চাকরি খুঁজতে বা কোন বিপথে পা না বাঁড়ায়। আর ভিসা হবার আগে ব্লক অ্যাকাউন্ট খুলতে হয় ভিসা আবেদনের একটি প্রয়োজনীয় শর্ত পূরণ করতে।

৩) ব্লক অ্যাকাউন্ট খুলতে কত টাকা জমা দিতে হয়, কত টাকা জমা(ব্লক) রাখতে হয়?

উত্তরঃ ব্লক অ্যাকাউন্ট খুলতে কোন টাকা লাগে না। জারমানিতে ব্লক অ্যাকাউন্টে দরকার অনুযায়ী অর্থ জমা দিতে হয়। আমাদের ঢাকার জার্মান দূতাবাস এর সর্বশেষ বিধিমতাবেক, সর্বনিম্ন €৮০৪০.০০ (Euro 8040.00/- ) ব্লক অ্যাকাউন্টে জমা(ব্লক) করতে হবে। কিন্তু একটা অতিরিক্ত €৫০.০০ ( Euro 50.00/-) জমা দিতে হয় কাঙ্ক্ষিত ব্লক অর্থের সাথে, এই অতিরিক্ত €৫০ সার্ভিস চার্জ হিসেবে কাটা হয়। শুতরাং, আপনি যদি €৮০৪০.০০ ব্লক করতে চান তাহলে আপনাকে গুনতে হবে €৮০৪০.০০+€৫০ = € ৮০৯০.০০/- বা তার সমমূল্য পরিমাণ টাকা।

৪) কোথায় খুলব ব্লক অ্যাকাউন্ট?

উত্তরঃ অক্টোবর ২০১৪ থেকে সকল শিক্ষার্থী-ভিসা প্রার্থীকে জার্মানির যে কোন ব্যাংকে ব্লক অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে এবং ব্লক সার্টিফিকেট সংগ্রহ করতে হবে। আমাদের বাংলাদেশী শিক্ষার্থীরা সবাই Deutsche Bank এই তাদের ব্লক অ্যাকাউন্ট করেন এবং আমাদের স্থানীয় ব্যাংকগুলো Deutsche Bank এর সাথে পরিচিত তাই আপনি চোখ বন্ধ করে Deutsche Bank এই আপনার মূল্যবান ব্লক অ্যাকাউন্টটি খুলবেন।

৫) ব্লক সার্টিফিকেট কি?

উত্তরঃ এটা একটি সাধারণ সার্টিফিকেট যাতে আপনি কত ইউরো ব্লক(জমা) করেছেন এবং আপনার জমা দেবার সময় ইউরো এক্সচেঞ্জরেট (আপনি কত টাকার বিনিময় প্রতি ইউরো কিনিছেন) লিখা থাকে।

৬) কিভাবে পাব ব্লক সার্টিফিকেট?

উত্তরঃ ব্লক সার্টিফিকেট পেতে আপনাকে একটি ব্লক অ্যাকাউন্ট খুলে তাতে আপনার কাঙ্ক্ষিত(সর্বনিম্ন €৮০৪০.০০) ব্লক করতে হবে। আপনার ব্লক অ্যাকাউন্টে সম্পূর্ণ অর্থ জমা হ্লে ব্যাংক আপনার ঠিকানায় বা ইমেইলে এই সার্টিফিকেটের একটি অনুলিপি(কপি) এবং ঢাকার জার্মান এমব্যাসিকেও একটি অনুলিপি পাঠাবে।

৭) কিভাবে খুলব ব্লক অ্যাকাউন্ট?

উত্তরঃ ব্লক অ্যাকাউন্ট খোলা নিয়ে আপনাদের অনেক দুসছিন্তা, কিন্তু বিষয় তা অতি সহজ।
নিচের ধাপগুলো অনুস্মরণ করুনঃ

প্রয়োজনীয় কাগজ পত্রঃ

  • আপনি প্রথমে এই লিঙ্কে গিয়ে ব্লক অ্যাকাউন্ট আর সর্বশেষ(latest) ফর্মটি(PDF) সংগ্রহ করুন – https://goo.gl/n3wvks
  • আপনি ফর্মটি আপানার ব্রাউজার(chrome, chromium) বা Adobe Reader DC/Foxit Reader দিয়ে পূরণ করতে পারেন।
  • পূরণকৃত ফর্মটির তৃতীয়(যেই পেজে আপনার নাম, ঠিকানা লিখেছেন) পৃষ্ঠা থেকে শেষ পৃষ্ঠা প্রিন্ট(সাদা-কালো/রঙিন) করুন, খেয়াল রাখবেন যে আপনার পূরণকৃত তথ্য যেন পরিষ্কার বুঝা যায় আপনার প্রিন্ট করা ফর্মে, না হলে প্রিন্টের মান(quality) বারিয়ে আবার প্রিন্ট করুন
  • আপনার সর্বশেষ(MRP) পাসপোর্ট(অবশ্যই মেয়াদ থাকতে হবে) এর দ্বিতীয় পৃষ্ঠার(আপনের ছবি যেটায়) একটি ফটোকপি করুন।

আপনার যদি আপনার পাসপোর্ট নম্বর মনে না থাকে, তাহলে এটা কোন ভাল জায়গায়(বা মবাইলে) লিখে রাখুন, পরে এটা লাগবে।
আপনি এখন প্রস্থুত, এখন খালি ভাব নিবেন। চলুন তাহলে বাকি কাজ শেষ করিঃ

An screenshot of reply email from embassy showing it is possible to attest block account for between sundand and wednesday.

রবিবার থেকে বুধবার যে কোন দিন বেলা ১.৩০ থেকে ২.০০টার মধ্যে ব্লক অ্যাকাউন্ট ফর্ম সত্যায়িত করতে জমা দেয়া যায়। ছবি ও তথ্যঃ Sayed Omi

  • আপনার পূরণকৃত প্রিন্ট করা ফর্ম, পাসপোর্ট এর ফটোকপি আর পাসপোর্ট(যেটার ফটোকপি করলেন) নিয়ে যেকোন বৃহস্পতিবার রবিবার থেকে বুধবার, এর যেকোন একদিন বেলা ১.৩০ এর মধ্যে চলে যান এই ঠিকানায়
    Embassy of Federal Republic of Germany
    178, Gulshan Avenue
    Gulshan 2
    Dhaka 1212
  • ডানদিকের ছোট লাল দরজায় টোকা দিবেন, পিচ্ছি জানালা দিয়ে দারোয়ান জিজ্ঞাস করলে বলবেন ব্লক অ্যাকাউন্ট আর ফর্ম অ্যাটেস্টেড করাবেন।
  • আপনাকে চেক করার নামে মিনি ডিস্ক দেয়াবে তারপর ভিতরে নিয়ে বসাবে।
  • কিছু অপেক্ষার পর একটা আজগুবি রুমে নিয়ে আপনার কাগজপত্র( ফর্ম, পাসপোর্ট, ফটোকপি) রেখে দিবে।
  • এবার বাড়ি ফিরে জান, বের হবার সময় একজন মহিলা গার্ড বলতে পারে যে পরের মঙ্গল বা বুধবারে আসুন, কিন্তু উনি বুঝাইতে চাচ্ছেন বৃহস্পতিবার। আপনি ওইদিন(জমা দেবার দিন) থেকে ৭ দিন পরে আসুন।
  • ঠিক পরের সপ্তাহের বৃহস্পতিবার(important) বেলা ২.০০ – ২.৩০ এর মধ্যে আবার উপরের ঠিকানায় জাবেন, বামদিকের কাঁচের বিশাল জানালার কাছে গিয়ে বলবেন আপনি আপনার ব্লক অ্যাকাউন্ট এর ফর্ম ফেরত নিতে আসছেন, আপনাকে আপনার পাসপোর্ট নাম্বার, পিতা/মাতার নাম জিজ্ঞাস ক্রবে, ঠিকমত বলবেন নাহলে কাগজ কিন্তু ফেরত দিবেনা, তাই জানালায় জাওয়ার আগেই আপনার পাসপোর্ট নাম্বার তা মুখস্থ করে নিবেন।
  • ১ ঘণ্টা পর আপনাকে ফর্মটি সত্যায়িত করে ফেরত দেয়া হবে।
  • এবার আপনার ফর্মটি একটা খামে ভরে নিম্ন লিখিত ঠিকানায় পাঠিয়ে দিবেনঃ
    Deutsche Bank
    Privat- und Geschäftskunden AG
    Ausländische Studenten
    04024 Leipzig
    Germany

আপনার কাজ শেষ, এখন বাকিটা ব্যাংক করবে।

A facebook post informing that block account forms are attested by embassy within 1 hour

এক ঘণ্টায় ব্লক অ্যাকাউন্ট ফর্ম সত্যায়িত করে দেয়া হয়। ছবি ও তথ্যঃ Jony Khan

৮) ফর্মে কোথায় কি লিখব, একটা স্যাম্পল দেন?

উত্তরঃ ফর্মে প্রথম পৃষ্ঠায়([1/5]) আপনার বেক্তিগত তথ্য দিবেন, এটা কিন্তু খুবই গুরুত্বপূর্ণ, কোন কিছু ভুল করলেই বিপদ। তৃতীয় পৃষ্ঠায় ([3/5]) এ আপনার কাঙ্ক্ষিত জার্মান বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম, নিচে পোস্ট কোড এবং এলাকা(যেমন München, Leipzig, Hamburg ইত্যাদি) লিখবেন। এই তথ্য আপনি আপনার offer/admission letter থেকে পাবেন। আর যদি এই তথ্য না জানেন তাহলে অই দুইটা বক্স খালি রাখেন, কোন সমস্যা নাই। তারপর চতুর্থ পৃষ্ঠায়([4/5]) অবশ্যই “9 Special notes on the immediate performance of the contract” এর নিচের বক্সে ক্রস দিবেন। আবার আপনি যদি ভাবেন আপনি আপনার ব্লক অ্যাকাউন্ট এর তাকা পয়সা অনলাইনে দেখবেন, তাহলে “8 Electronic payment channels” এর নিচের বক্সে ক্রস দিবেন, আর যদি ভাবেন দরকার নাই, তাহলে ক্রস দিবেন না। সবশেষে “10 Signatures” এর নিচে “Date” আর ঘরে তারিখ আর “Town/City” আর ঘরে Dhaka লিখবেন।

যারা একটু “ভাই দেখি না কি লেখছেন, এমন করেন কেন?” শভাবের, তারা আমার ফর্মটা দেখতে পারেন, যেটা দিয়ে আমি আমার ব্লক অ্যাকাউন্ট খুলছি। খুশি হবার কিছু নাই, আমি ইচ্ছাকৃত ভাবে জন্মতারিখ, ইমেইল আর ঠিকানা বদলায় দিছি, কিন্তু বাকি সব ঠিক আছে। এই লিঙ্কে আমার ফর্মটা দেয়া আছে – https://db.tt/YHDmJV68

৯) ফর্ম পাঠানোর কয়দিন পর আমি আমার ব্লক অ্যাকাউন্টের তথ্য পাব?

উত্তরঃ আমি এবং আমার পরিচিত যারা ব্লক অ্যাকাউন্ট করছেন, সবাই ফর্ম Deutsche Bank এর অফিসে পৌঁছানর পর ৭ দিনের মাথায় ঠিক দুপুর ২.০০ – ৪.০০ এর মধ্যে অ্যাকাউন্ট বিবরনি তাদের ইমেইলে পেয়েছেন। আপনিও ৭-১৫ দিনের মধ্যেই পেয়ে যাবেন।

১০) Deutsche Bank আমার ফর্ম তাদের অফিসে পৌঁছানর পর কি কোন confirmation email দেয়?

উত্তরঃ না, কোন confirmation পাবেন না যে Deutsche Bank আপনার ফর্ম পেয়ে গেছে। আপনি নিশ্চিত হতে চাইলে আপনার ক্যুরিয়ার সার্ভিস এর ট্র্যাকিং সিস্টেম দিয়ে দেখে নিন কবে তারা আপনার ফর্মটি Deutsche Bank এর অফিসে পৌঁছে দিয়েছে।

১১) আমার অ্যাকাউন্ট আর তথ্য পেয়ে গেলাম, এখন কি?

উত্তরঃ এবার হল আসল জ্বালাতন। এখন আপনাকে আপনার ব্লক অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠাইতে হবে।

তাহলে প্রথমে আমরা একটু প্রস্থুতি নেই। নিম্নে উল্লেখিত কাগজপত্রের একটি করে প্রিন্ট অথবা ফটোকপি জোগাড় করুন

  • Offer Letter
  • Statement of Cost or Statement of Expense(optional, আপনের বিশ্ববিদ্যালয়ের admission office এ ইমেইল করলেই দিবে)
  • German Embassy Instruction for Student Visa Applicants ( link – http://goo.gl/VQewye)
  • Block Account Information(ইমেইলে Deutsche Bank থেকে যে PDF ফাইল টা পেয়েছেন)

তারপর বেড়িয়ে পরুন আপনের নিকটবর্তী যে কোন ব্যাংকের(যেটায় আপনার বা আপনার পরিবারের কারো account আছে) AD বা যে শাঁখায় Foreign Exchange এর কাজকর্ম হয়। গিয়ে বলবেন “আমি বাইরে একটা ইউনিভার্সিটিতে admission পেয়েছি, আমার থাকা খাওয়ার খরচটা আগে পাঠাতে চাচ্ছি, আমার কি কি করতে হবে বলেন”।

১২) কোন কোন ব্যাংকে ব্লক অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠাতে পারে, একটু বলেন?

উত্তরঃ সব ব্যাংক এটা পারে কিন্তু তাদের লাভের কথা চিন্তা করে বা উটকো ঝামেলা মনে করে আপনাকে ফিরিয়ে দিতে পারে।
আমরা এবং গ্রুপের অন্যান্যরা বেশ কিছু ব্যাংকে গিয়েছিলাম, সবার তথ্য অনুযায়ী নিচের ব্যাংকগুলো বর্তমানে ব্লক অ্যাকাউন্টের টাকা পাঠাতে সম্মত হয়েছে/পাঠিয়েছেঃ

  • AB Bank
  • City Bank
  • Dhaka Bank
  • MTB
  • NCC Bank
  • Trust Bank
  • UCBL(বেশ পূরানো অ্যাকাউন্ট থাকতে হবে)

এগুলোর AD ব্রাঞ্ছে যেতে হবে, যেকোন ব্রাঞ্ছে গেলে হবে না। আপনারা একটু কষ্ট করে এদের AD ব্রাঞ্ছের ঠিকানা যোগার করে নিবেন। আমরা গিয়েছিলাম গুলশান, মতিঝিল আর ধান্মন্দি ব্রাঞ্ছে।

১৩) ব্যাংকে গিয়ে কি বলব, কি বললে লাভের থেকে ক্ষতি হবে বেশি?

উত্তরঃ উপরের যেকোন একটি ব্যাংকের AD শাখায় গিয়ে বলবেন নিচের যে কোন একটি magic sentence:

  1. “আমি বাইরে একটা ইউনিভার্সিটিতে admission পেয়েছি, আমার থাকা খাওয়ার খরচটা আগে পাঠাতে চাচ্ছি, আমার কি কি করতে হবে বলেন”।
  2. “আমি বাইরে পড়ালেখার জন্য জাব, আমার থাকা খাওয়ার এক বসরের খরচ পাঠাতে চাচ্ছি, কি কি করতে হবে একটু বুঝায় বলেন”।
  3. “আমার বাইরে একটা বিশ্ববিদ্যালয়ে admission হয়ে গেছে, আমার থাকা খাওয়ার এক বসরের খরচ পাঠাতে চাচ্ছি, স্টুডেন্ট ফাইল খুলব, কি কি করতে হবে বলেন”।

আপনের যদি অই ব্যাংকে আগে থেকে অ্যাকাউন্ট থাকে তাহলে (3) নাম্বার টা বলবেন, যদি অ্যাকাউন্ট না থাকে তাহলে (1) অথবা (2) বলা ভাল।

আপনি নিচের কথাগুলো কখনই বলবেন না, এগুল বল্লে আপনাকে সব ব্যাংক থেকে ফেরত আসতে হবেঃ

  • “আমার জার্মানিতে admission হয়েগেছে, আখন এমব্যাসির জন্য ব্লক অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠাইতে হবে …”
  • “আমার ভিসার জন্য আমার ব্লক অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠাইতে হবে …”
  • “আমার থাকা খাওয়ার টাকা জার্মানিতে ব্লক অ্যাকাউন্টে পাঠাবো …”
  • “আমি জার্মানিতে আমার ব্লক অ্যাকাউন্টে ভিসার জন্য তাকা পাঠাইতে চাচ্ছি…”

কোন ভাবেই ব্যাংকে গিয়ে “ভিসা”,”ব্লক অ্যাকাউন্ট” এবং “এমব্যাসি”, এই তিনটি শব্দ মখে আনবেন না, তাহলে বিপদ।

১৪) Student-File খোলা লাগবে, কি কি কাগজপত্র জমা দিতে হবে?

উত্তরঃ সাধারণত নিচের কাগজপত্র (photocopy/printed copy) গুলো প্রয়োজন হয়ঃ

  • Admission/Offer Letter
  • Statement of Cost/Expense/Living Cost
  • Student Visa Instruction-German Embassy (link – http://goo.gl/VQewye)
  • Attested photocopies of all academic certificates(including IELTS)
  • Deutsche Bank Account Information(received via email)
  • Photocopy of the personal details(2nd page) of valid Passport(MRP preferred)
  • An application to the Manager of the Bank
  • An application to Bangladesh Bank

পূর্বে যদি ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট না থাকে তাহলে একটা অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে, যার জন্য লাগবে

  • নিজের National ID Card এর ফটোকপি
  • নিজের ২টা পাসপোর্ট সাইজের ছবি
  • নমিনির ১ থেকে ২টা পাসপোর্ট সাইজের ছবি
  • নমিনির National ID Card/Passport এর ফটোকপি
  • পুরনকৃত অ্যাকাউন্ট খোলার ফর্ম
  • প্রথম ‘minimum deposit’ এর টাকা, ব্যাংক ভেদে এটা ১০০০ – ১০০০০ হতে পারে

১৫) Student-File খোলার জন্য কেমন খরচ হবে?

উত্তরঃ এটা ব্যাংক ভেদে পরিবর্তনশীল। তবে সাধারণত স্টুডেন্ট ফাইল খুলতে নিম্নে ৩০০০টাকা থেকে শুরু করে ১০০০০ টাকাও লাগতে পারে, আপনার ব্যাংক থেকে এটা জেনে নিন।

১৬) টাকা পাঠিয়ে দিলাম, তারপর?

উত্তরঃ টাকা পাঠানর পর Deutsche Bank যদি সম্পূর্ণ €(৮০৪০.০০ + ৫০) পেয়ে যায়, তাহলে তারা আপনার টাকা প্রাপ্তি স্বীকার করে আপনাকে ইমেইল করবে এবং একটি ব্লক সার্টিফিকেট আপনার ও জার্মান এমব্যাসির কাছে পাঠিয়ে দিবে।

বহুল আলোচিত প্রশ্ন-উত্তরঃ

১৭) আমি যে টাকাটা ব্লক করলাম ওটা কি মাইর না তোলা যাবে?

উত্তরঃ যদি ভিসা পানঃ আপনি জার্মানি পৌঁছে যাবার পর আপনার নিকটবর্তী Deutsche Bank এর শাঁখায় গিয়ে একটি লখিত আদেশপত্র দিলেই আপনার অ্যাকাউন্ট ৭-১৪ দিনের মধ্যে খুলে যাবে এবং আপনি আপনার প্রথম মাসের অনুমদিত €৬৭০ তুলতে পারবেন।

যদি ভিসা না পানঃ আপনি জার্মান এমব্যাসি গিয়ে কর্তৃপক্ষকে একটু বেশরকম জ্বালাতন করলে আপনাকে একটা ‘Consular Certificate’ দিবে যে আপনি ভিসা পান নাই, তাই আপনার ব্লক অ্যাকাউন্ট এর তাকা ফেরত পাঠান হোক। আপনি এই সার্টিফিকেট এবং পুরনকৃত অ্যাকাউন্ট বন্ধ করার ফর্ম(https://goo.gl/kca7UQ) Deutsche Bank এর ঠিকানায় পাঠিয়ে দিন, বাকিটা আপনার ব্যাংক আর Deutsche Bank দেখবে।

১৮) ভিসা হবার পর পুর ব্লক করা টাকা তুলে নিতে পারবো?

উত্তরঃ না, এটা শম্ভব নয়। আপনি আপনার মাসের অনুমদিত টাকা টুকু তুলতে পারবেন।

১৯) বাংলাদেশের কোন ব্যাংকে কি ব্লক অ্যাকাউন্ট করা যাবে?

উত্তরঃ না, এমব্যাসি শুধু জার্মানিতে অবস্থিত ব্যাংকে ব্লক অ্যাকাউন্ট গ্রহণযোগ্য হিসাবে নেয়।

২০) আমি যদি “ক” বিশ্ববিদ্যালয়ের admission letter দিয়ে ব্লক অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠাই, কিন্তু “খ” অথবা “গ/ঘ” বিশ্ববিদ্যালয়ে যাই তাহলে কি সমস্যা হবে?

উত্তরঃ সমস্যা হবে না। কিন্তু পরে যদি আপনি ব্যাংকে(ঢাকায়) গিয়ে আরও কিছু টাকা পাঠাতে চান(যেমন ফ্ল্যাট বুকিং এর অগ্রিম টাকা) এবং “ক” বিশ্ববিদ্যালয়ের বদলে “খ/গ/ঘ” বিশ্ববিদ্যালয়ের কাগজ জমা দেন, তাহলে ব্যাংক রাজি হবে না।

২১) আমি যদি “ক” বিশ্ববিদ্যালয়ের admission letter দিয়ে ব্লক অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠাই, কিন্তু “খ/গ/ঘ” বিশ্ববিদ্যালয়ে্ যেতে চাই এবং “খ/গ/ঘ” বিশ্ববিদ্যালয়ের admission letter দিয়ে ভিসা সাক্ষাৎকার দিতে চাই, তাহলে কি সমস্যা হবে?

উত্তরঃ আমার জানা মতে এমব্যাসি জানতে পারবে না যে আপনি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম করে ব্লক অ্যাকাউন্টে টাকা পাথিয়েছেন, তাই সমস্যা নাই, কিন্তু অবশ্যই সব(ক,খ,গ,ঘ) admission letter সাথে রাখবেন। যদি এমব্যাসি জিজ্ঞাশ করে আপনি “ক” বাদ দিয়ে কেন “খ” তে যাচ্ছেন, এক কথায় শেষ যে খ এর কোর্স গুলা আরও বেশি ভাল এবং আপনার পরিচিত।

২২) আমাকে যদি আমার চাচা/মামা/ফুপা/খালু/খালা ইত্যাদি স্পন্সর করেন তাহলে কি আমার ব্লক অ্যাকাউন্ট এর প্রয়োজন আছে?

উত্তরঃ আগে এটা সম্ভব ছিল কিন্তু ১৪ই মে, ২০১৫ইং একটি পোস্টে আমাদের গ্রুপের একজন সদস্য(Asif Reza) জানালো যে এমব্যাসি এখন থেকে আর স্পন্সরশিপ গ্রহণ করছে না তাই সকল শিক্ষার্থী ভিসা আবেদনকারী অবশ্যই ব্লক অ্যাকাউন্ট বা শিক্ষাবিত্তি এর প্রমাণ জমা দিতে হাবে। আমাদের তথ্য সূত্রের একটি screenshot নিচে দেয়া হল।

email informing sponsorship no longer accepted for student visa application

এই হল সব ব্লক অ্যাকাউন্টের বিষয়। আশাকরি আপনাদের ব্লক অ্যাকাউন্ট নিয়ে যে সাধারণ প্রশ্ন ছিল, অন্তত বেশির ভাগ এই প্রবন্ধে উত্তর দিয়েছি। যদি আপনাদের আরও কোন প্রশ্ন থাকে আমাদের গ্রুপে জানান, আমরা যথা সাধ্য উত্তর দেবার চেষ্টা করবো।

বিশেষ অনুরধঃ উপরের পোস্টে কোন ভুল তথ্য থাকলে আমাদের জানাবেন, আমরা ঠিক করে দিব। প্রচুর বানান ভুল আছে, একটু খমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখে মাফ করে দিবেন।

ধন্যবাদ।

 

লেখাঃ আশরাফুল ইসলাম

#BSAAG_Block_Account
#BSAAG_FAQs

হালনাগাদ:

  • (১৪ই মে, ২০১৫): নতুন প্রশ্ন(২২) স্পন্সরশিপ নিয়ে
  • (৮ই জুন, ২০১৫): ব্লক অ্যাকাউন্ট ফর্ম সত্যায়িত করার নতুন সময়সূচী- প্রশ্ন(৭)

Sources:
https://www.deutsche-bank.de/pfb/content/privatkunden/konto_international-students-en.html
http://www.dhaka.diplo.de/Vertretung/dhaka/en/02/0Einreise__Hauptbereich.html
http://www.dhaka.diplo.de/Vertretung/dhaka/en/02/Sperrkonto.html
http://www.dhaka.diplo.de/Vertretung/dhaka/en/02/Attestation.html
http://bsaagweb.de/all-about-block-account/
এক ঘণ্টায় ব্লক অ্যাকাউন্ট ফর্ম সত্যায়িত করে ফেরত দেয়া হয়

Print Friendly, PDF & Email