• Home »
  • Cities-in-Germany »
  • বিলেফেল্ড: গ্রামীণ সৌন্দর্যে সজ্জিত বিশাল শহর

বিলেফেল্ড: গ্রামীণ সৌন্দর্যে সজ্জিত বিশাল শহর

 

বড় শহরের গুনাগুন এবং গ্রামীণ জীবন-উভয়ই আপনি বিলেফেল্ডে পাবেন। শহরে মধ্যযুগে অবস্থিত একটি মনোরম ঐতিহাসিক জেলা এবং অনেক সবুজ শাক সব্জীর খামার এবং পার্ক আছে।কম খরচ এবং সবকিছু খুব কাছাকাছি থাকায়, বীলেফেল্ড পড়াশোনা করার জন্য একটি আদর্শ জায়গা।একজন ছাত্র হিসেবে বিলেফেল্ডে,আপনি মাঝে মাঝে শহরে নানা গুজব শুনতে পারেন, একটি একগুঁয়ে গুজব দীর্ঘকাল ধরে আজও সেখানে প্রচলিত রয়েছে।বিলেফেল্ড নবম শতাব্দীতে প্রতিষ্ঠিত এবং মধ্যযুগে পুরো প্রদেশের বাণিজ্যিক কেন্দ্র হয়ে উঠে। লিনেন উৎপাদনের জন্য শহরটি সকলের নিকট পরিচিত হয়ে ওঠে।এর ঐতিহাসিক সিটি সেন্টার এবং Sparrenburg দেখে আপনি ধারণা করতে পারেন যে,বিলেফেল্ড মধ্যযুগে অর্থনৈতিকভাবে কতটা প্রভাবশালী ছিল।

Sparrenburg castle

স্পারেনবুর্গ ক্যাসেল

বিলেফেল্ড শহরের তথ্য এবং পরিসংখ্যানঃ

অধিবাসীঃ ৩২৭,০০০ জন

শিক্ষার্থীঃ ৩৩,৯০০ জন

বিশ্ববিদ্যালয়ঃ ৪টি

মাসিক ভাড়াঃ ২৭৪ ইউরো।

ওয়েবসাইটঃ www.bielefeld.de

১৩ শতকে অবস্থিত ঐতিহাসিক Sparrenburg দুর্গ শহরের প্রধান আকর্ষণ, এখানে প্রতিবছর জুলাইয়ে মধ্যযুগীয় নানা উৎসব এবং বাজারের দৃশ্য দেখতে পাওয়া যায়। ঐতিহাসিক সুন্দর শহরের কেন্দ্রে, হাটতে হাটতে আপনি সংস্কারকৃত অভিজাত বাড়ীসমূহ অথবা জানালায় অবস্থিত দোকান এবং ছোট বুটিকসমূহ দেখে মুগ্ধ হবেন।শহরের নতুন অংশ “Neustadt” এ সারিবদ্ধ বড় বড় বিভিন্ন দোকান পাবেন যেখানে আপনার প্রয়োজনের সবকিছু আছে।

Old Town

পুরনো শহর

আপনি প্রকৃতিপ্রেমী ব্যক্তি হন, তাহলে আপনি Hermannsweg বরাবর ১৬০ কিলোমিটার হাইকিং এ যেতে পারেন। এটা Rheine এ শুরু হয় এবং  Lippischer Velmerstot পর্বত পর্যন্ত রাস্তা বিস্তৃত হয়, এবং জার্মানির সবচেয়ে সুন্দর হাইকিং করার রাস্তা।এই রাস্তা Teutoburg বনের মধ্য দিয়েও যায়, অনেকে এটাকে বিলেফেল্ডের “সবুজ ফুসফুস” বলে থাকে। যাই হোক, বিলেফেল্ড সম্পর্কে একটি গুজব প্রচলিত আছে, কোনমতেই তা বন্ধ হয় না।আপনি জার্মানদের বলতে শুনতে পারেন যে বিলেফেল্ডের সত্যিই কোন অস্তিত্ব নেই। কারণ: বিশ বছর আগে বিলেফেল্ডের ছাত্ররা, ইন্টারনেটের মাধ্যমে কিভাবে দ্রুত তথ্য ছড়িয়ে পড়ে তা খুঁজে বের করতে চেয়েছিলেন।তারা “বিলেফেল্ডের অস্তিত্ব নেই” এমন একটা গুজব রটাতে শুরু করে। সে  গুজব দাবানলের মতো সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ে এবং এখনও সে গুজব প্রচলিত রয়েছে!

বিলেফেল্ড শহরে বসবাস

আপনি যদি বড় শহরে থাকার চেয়ে দেশে বাস করাকে বেশি প্রাধান্য দেন, তাহলে বীলেফেল্ড আপনার জন্য উপযুক্ত জায়গা।শহরের মধ্যে আপনি সাইকেলে করে সব জায়গাতে যেতে পারেন কারণ সকল প্রধান প্রধান জায়গাগুলো খুবই কাছাকাছি অবস্থিত।বীলেফেল্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র হিসেবে, আপনি বিনামূল্যে ট্রামে যাতায়াত করতে পারেন। বিলেফেল্ডে বাড়ি ভাড়া তুলনামূলকভাবে খুব কম।

Teutoburg Forest

টেউটবুর্গ জঙ্গল

শহরের কাছাকাছি ফ্ল্যাট শেয়ারে একটি ঘরের ভাড়া জায়গাভেদে ২৫০-৩৫০ ইউরোর মধ্যে হয় ,এছাড়াও স্টুডেন্ট হলে, আপনি ইউটিলিটি সহ মাত্র ১৭০ ইউরোর মধ্যে একটি রুম পেয়ে যাবেন। বিলেফেল্ডে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কার্যক্রম এবং ইভেন্টের আয়োজন করা হয়। “Carnival der Kulturen“ তে, রঙিন কার্নিভ্যাল প্যারেডে, রাস্তায় আপনি উল্লাসজনক সঙ্গীত উপভোগ করতে পারেন। প্রত্যেক গ্রীষ্মে Ravensberger পার্কে, সর্বশেষ মুক্তি পাওয়া ব্লকবাস্টার  এবং ক্লাসিক ফিল্ম এর সমন্বয়ে একটি বড় উন্মুক্ত সিনেমা ইভেন্টের আয়োজন করা হয়। শহরের সমৃদ্ধ সাংস্কৃতির সাথে অনেক জাদুঘর, অগণিত স্বাধীন থিয়েটার এবং বিভিন্ন গায়কদল যুক্ত হয়েছে।

রৌদ্রজ্জ্বল দিনে, অনেক ছাত্র শহরের পশ্চিম দিকে Oetkerpark  এ আড্ডা দিতে পছন্দ করে,অবশ্য Sparrenburg promenade বা Nordpark এর দিকেও বেড়াতে যায়। উষ্ণ গ্রীষ্মের সন্ধ্যায়, আপনি অনেক মানুষকে Siegfriedplatz অথবা বিলেফেল্ডের পশ্চিম দিকের অনেক ক্যাফের বাইরে বা শহরের কেন্দ্রস্থলে সকালের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত বাইরে বসে থাকতে দেখবেন।

Jahnplatz

ইয়ানপ্লাটস

এখানে অনেক ছোট এবং বড় সাশ্রয়ী মূল্যের ক্যাফে আছে যেখানে সব ধরনের খাবার পাবেন।Ferdis Pizza Pinte , বিলেফেল্ডের স্টুডেন্ট পাব, এগুলতে  আপনি পিজা, স্যালাডে এবং আন্তর্জাতিক খাবার সমূহ পাবেন।অথবা আপনি Hechelei তে গিয়ে ককটেল পান করতে পারেন। Hechelei  সাবেক স্পিনিং মিলের পাশে অবস্থিত- যদি আকর্ষণীয় সব বিল্ডিংয়সমূহ দেখতে চান তাহলে এটি অবশ্য দর্শনীয় একটি জায়গা! যে ধরনের সঙ্গীতই আপনার পছন্দ হোক না কেন- রক, পপ বা ইলেক্ট্রনিক – আপনি বিলেফেল্ডে সব ধরনের সঙ্গীত শুনতে পাবেন। এন্ট্রি ফি বেশ কম- মোটামুটি প্রায় পাঁচ ইউরোর কাছাকাছি। অনেক অনুষ্ঠান বিশ্ববিদ্যালয় সমুহে হয়ে থাকে। সেমিস্টারের শুরুতে “Westend Party” অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে,এটি বিলেফেল্ডের সীমানার বাইরেও বেশ পরিচিত,কারন এটি প্রায় ১০,০০০ মানুষের উপস্থিতিতে জার্মানির বৃহত্তম ইনডোর অনুষ্ঠান।

আপনি যদি কোন খেলা খেলতে চান,তাহলে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রচুর সুযোগ-সুবিধা রয়েছে।সেখানে বিভিন্ন  খেলাধুলার কোর্স  করানো হয়, বিচ ভলিবল থেকে শুরু করে স্টেপ এরোবিক্স, সবগুলোই করানি হয়।অনেক কোর্স কোন খরচ ছাড়াই করানো হয়। শুধু সময়মত রেজিস্টার করতে ভুলবেন না, কারন কোর্সসমুহে দ্রুত ভর্তি শেষ হয়ে যায়।বিশ্ববিদ্যালয়সমূহ বিভিন্ন ধরনের ছাত্র সংগঠনের আবাসস্থল। উদাহরণস্বরূপ, আপনি আপনার বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব রেডিও স্টেশন Hertz 87.9 এর সাথে জড়িত হতে পারেন।এই রেডিও স্টেশন ছাত্রদের তাদের নিজস্ব সঙ্গীত সম্প্রচার করার সুযোগ প্রদান করে এবং এতে তারা রেডিও উপস্থাপক হিসাবে অভিজ্ঞতা লাভ করে।

করিন্না স্লান এর টিপস

আপনি একমাত্র তখনই সত্যিকারের বিলেফেল্ডে পৌঁছবেন যখন, Sparrenburg  এ মধ্যযুগীয় উৎসব পরিদর্শন করবেন এবং ফায়ার-ব্রিদার দের আশ্চর্য সব কৃত্তিকলাপ দেখবেন!

তুরস্কের মিউজের সঙ্গে  করিন্না স্লান এর সাক্ষাৎকার

২০ বছর বয়সী মিউজ আর্সলানটার্ক তুরস্ক থেকে এসেছেন। তিনি বর্তমানে বিলেফেল্ডে মনোবিজ্ঞানে তার ব্যাচেলর ডিগ্রী সম্পন্ন করছেন।

Muge from Turkey

তুরস্কের মিউজ

করিন্নাঃ  আপনি কিভাবে বিলেফেল্ডে বাস করতে পছন্দ করেন?

মিউজঃ আমি পাঁচ মিলিয়ন বাসিন্দার একটি শহর থেকে এসেছি।এটাই আমার বিলেফেল্ডে থাকতে পছন্দ করার সবচেয়ে বড় কারণ – এটি ছোট্ট একটি শহর।আমার সাথে এখানে বেশ কিছু বিদেশী ছাত্র থাকে,যেটা আমার খুব ভালো লাগে। আপনি বলতে পারেন আমি বহুসাংস্কৃতিক জীবন পরিচালনা করছি।

করিন্নাঃ এখানে স্টুডেন্ট লাইফ কি ধরনের?

মিউজঃ আমাকে বলা হয়েছিল  ইরাসমাসের ছাত্ররা “আসল” ছাত্র নয়, তারা অনেকটা পর্যটকদের মতো। এটা সত্য যে আমরা নিয়মিত ছাত্রদের মত অধ্যয়ন করি না। কিন্তু মডিউল পাস করার জন্য, আমাদের প্রচুর হোমওয়ার্ক এবং পরীক্ষা আছে। অধ্যাপক সত্যিই খুব আন্তরিক এবং সহায়ক। এই সেমিস্টারে আমি জার্মান ভাষার কোর্স করছি এবং অধ্যাপকরা আমাকে কোর্সে যা হচ্ছে তার সবকিছু বুঝতে সাহায্য করছেন।

করিন্নাঃ আপনি কেন বীলেফেল্ডকে বেছে নিয়েছেন?

মিউজঃ আমাকে জার্মানিতে পড়াশোনার জন্য আমাকে দুইটি জায়গার মধ্যে একটিকে বেছে নিতে হয়েছিল। একটা ছিল বীলেফেল্ড এবং অন্যটা ছিল Bochum । আমি ইন্টারনেটে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সম্পর্কে খুঁজে দেখি এবং তাদের সম্পর্কে বেশকিছু তথ্য পায়। আমার কিছু বন্ধু বিলেফেল্ডে পড়তো এবং তারা আমাকে এখানে অধ্যয়ন করতে আসার উৎসাহ দেয়। শেষ পর্যন্ত, আমি এই শহরকে বেছে নেই কারণ অন্ততপক্ষে আমি আমার কিছু কোর্স ইংরেজিতে করতে পারবো।

Theatre

থিয়েটার

করিন্নাঃ আপনি কিভাবে জার্মানিতে আপনার থাকার জন্য প্রস্তুতি নিয়েছিলেন?

মিউজঃ আমি যখন বিলেফেল্ডে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি পায়, তখন  আমি দুই মাসের জার্মান কোর্স শুরু করি।যত দ্রুত সম্ভব আমি আমার জার্মান ভাষা উন্নত করার চেষ্টা করেছিলাম।এসব বাদে আমাকে খুব একটা বেশিকিছু করতে হয়নি কারন ইন্টারন্যাশনাল অফিস অন্যান্য বিষয়ে আমাকে সাহায্য করেছে।

করিন্নাঃ আপনি কিভাবে ফ্ল্যাট খুঁজে পেয়েছিলেন ?

মিউজঃ আমি যখন বিশ্ববিদ্যালয়ে আমার সব কাগজপত্র পাঠিয়ে দিয়েছিলাম, তখন আমি ইন্টারন্যাশনাল অফিস থেকে একটি ইমেইল পেলাম এবং তাতে জানতে চেয়েছিল যে আমার বাসস্থান খুঁজে পেতে কোন সাহায্য প্রয়োজন কিনা। তারপর তারা আমার জন্য একটি ফ্ল্যাট খোঁজে। এখন আমি পাঁচজন ইরাসমাস ছাত্রের সঙ্গে একটি ফ্ল্যাট থাকি।

করিন্নাঃ আপনি  যখন পৌঁছলেন তখন আপনি প্রথম কোন জিনিষটা খেয়াল করেছিলেন ?

মিউজঃ প্রথম যে জিনিষটা আমি খেয়াল করি তা হল জার্মানদের কর্মতৎপরতা এবং শৃঙ্খলাবোধ।তাদের সবকিছু পরিকল্পনাবদ্ধ এবং এমন কোন সমস্যা তৈরি হয় না যার কোন সমাধান নাই।

সুত্রঃ study-in.de

অনুবাদকঃ সাজেদুর রহমান, রাজশাহী।

Print Friendly, PDF & Email