ডি ডয়েচে

 

২০১৪ এর এপ্রিল, বিশ্ববিদ্যালয় এর ২য় দিন। প্রথম দিন টা বেশ ভালই কেটেছিল, ঝামেলা টা করল এক জার্মান।আল-জেব্রা ক্লাস এর প্রথম দিনেই বেটা ঘোষণা দিল বাড়ির কাজ করার সঙ্গী খুঁজতে। আরে বেটা ২ টা দিন সময় তো দে। একটু ঘুড়ি-ফিরি মানুষজন চিনি। না প্রথম দিন ই বাড়ির কাজ। আর সঙ্গী কি গাছে ধরে বললেই পাওয়া যায়। ক্লাস এর সবার উপর একবার চোখ বুলিয়ে দেখলাম কোন দেশি ভাইবেরাদর আছে কিনা। ভাগ্য সহায় না আজকে।ক্লাস এ বাদামি চামড়া সুধু আমার ই। দেশে থাকতে সবাই বলেছে জার্মান রা বিদেশি দেখলেই নাক শিটকায়, এই বদ্ধমূল ধারনা আজ বুঝি বাস্তবে পরিণীত হতেযাচ্ছে। বিপদ থেকে আমাকে উদ্ধার করল এক জার্মান ই। আমার পাশে বসা জার্মান ছেলেটাই হাত বাড়িয়ে দিয়ে প্রশ্ন করল আমরা একসাথে বাড়ির কাজ করতে চাই কিনা। উফ বড় একটা ফারা গেলো।

Continue reading

দুরবিন ২ : নতুন জীবনের সূচনা

 

 

       ভোর ৪ টা কনকনে ঠাণ্ডা এর মধ্যেই আউসল্যান্ডার বেহরডে ( জার্মান ইমিগ্রেশন অফিস) এর গেট এর সামনে লাইন ধরে অপেক্ষা করছি। কান আর নাক এর অনুভূতি হারিয়েছে অনেকক্ষণ আগেই। হাত আর পা এ কিম্ভুত কিমাকার হাত মোজা আর এভারেস্ট এ ওঠা যাবে এমন জুতা থাকা সত্ত্বেও অবশ হওয়ার যোগার। মনে মনে শপথ করলাম এর পরের বার বসার জন্য ফল্ডিং চেয়ার নিয়ে আসব। সকাল ৭ টায় গেট খুলে ভিতরে ঢুক তে দেওয়া হল। এর পর আরও এক ঘণ্টা অপেক্ষার পর আমরা মুল বিল্ডিং এর ভিতর ঢুকলাম। উপরে উঠে আমার স্টুডেন্ট ভিসা নেওয়ার কাউন্টার খুঁজতে খুঁজতে অই দিনে বরাদ্দ কৃত wartenummer ( সিরিয়াল নাম্বার) সব বিলি করা শেষ। এক জার্মান ভদ্রলোক লাউড স্পিকার এ কিছু বললেন। জার্মান ভাষায় ব্যাপক জ্ঞান থাকায় এক টি শব্দ ও বুঝলাম না। ২ ঘণ্টা অপেক্ষার পর পাশে বসা একজন এর কাছে জানলাম আজ আর সিরিয়াল নাম্বার দেওয়া হবে না। ৪ ঘণ্টা ঠাণ্ডায় দাঁড়িয়ে থাকাটাই বৃথা। Continue reading

দূরবীন : আগমন

 

 

অক্টোবর ২০১১

রাত ৮ টার দিকে আমরা রওয়ানা হলাম, উদ্দেশ্য হজরত শাহজালাল বিমান বন্দর। কিছু ঘণ্টা আগে ও নতুন কিছু পাবার উত্তেজনায় কাঁপছিলাম কিন্তু এখন কেমন যেন লাগছে। স্বপ্নের মাঝে ট্রেন মিস হয়ে গেলে যেমন অনুভূতি হয় অনেকটা তেমন। কিছুক্ষণ পর বেয়াদব চোখ দুটো ও কেমন জেনো অদ্ভুত আচরণ শুরু করলো। রাত ১০ টায় আমাদের উড়োজাহাজ জার্মানি এর উদ্দেশ্যে উড়াল দেওয়ার কথা। বাবা পাশে বসে আছেন। তার চোখেও কিছু এক টা হয়েছে। আমার মতই তার বার বার চোখ মোছা দেখে খুব অবাক হলাম। বাবা কাঁদতে জানে জানতাম না। Continue reading

জার্মানি তে ব্যাচেলর ও একটি সহজ সমীকরণ

 

জার্মানি তে ব্যাচেলর ও একটি সহজ সমীকরণ

গ্রূপ এ একটি অতি জনপ্রিয় প্রশ্ন ” জার্মানি তে ব্যাচেলর করতে চাই , বিজ্ঞ দের মতামত কি ? ”
উত্তর তা মোটামুটি এই রকম ” মাস্টার্স এ আসেন, ব্যাচেলর তা দেশেই করেন ”
প্রশ্নকরতার এই উত্তর শুনে ( 90 % এর ক্ষেত্রে সত্য ) যে গা জ্বালা করে আমি তা এখান থেকেই টের পাই. 5 বছর আগে আমি যখন জার্মানি তে আসার জন্য উঠেপড়ে লেগেছিলাম তখন আমাকে কেউ এই উপদেশ দিলে আমার ও গা জ্বালা করতো . Continue reading