ব্লাক ফরেস্ট ঘুরে আসুন

 

জার্মানির ব্ল্যাক ফরেস্ট ভ্রমণের জন্য এক অসাধারণ জায়গা৷ মাঝারি পাহাড়, চমৎকার খাবার, বন্ধুত্বপূর্ণ পরিবেশের পাশাপাশি সেখানে রয়েছে পর্যটকদের জন্য নানা আয়োজন৷ ব্লাজ ফরেস্টে ঘুরতে যাবার অসাধারণ কারন গুলো দেখে নিন-

জার্মানির দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলকে রোমানরা নাম দিয়েছিল ব্ল্যাক ফরেস্ট, কেননা সে অঞ্চল একসময় ছিল অন্ধকারাচ্ছন্ন এবং অভেদ্য৷ সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সেখানকার জঙ্গল হালকা হয়ে গেছে৷ এখন সেখানকার উপত্যকায় গরু চরে৷ তবে কিছু অংশে প্রকৃতিকে রেখে দেয়া হয়েছে তার মতো করে৷1

 

ব্ল্যাক ফরেস্টের মানুষ টেকসই পর্যটনে বিশ্বাসী৷ তাই সেখানে পর্যটকদের ভ্রমণের মাধ্যম হিসেবে রয়েছে পরিবেশবান্ধব বিভিন্ন ব্যবস্থা৷ ‘হাই ব্ল্যাক ফরেস্ট’ কার্ডধারীরা বিনা খরচায় বাস এবং ট্রেনে চড়তে পারেন, এমনকি ইলেক্ট্রিক কারও চালাতে পারেন৷ রয়েছে ই-বাইকের ব্যবস্থা৷ আর হাঁটতে চাইলেতো কথাই নেই৷2

 

ব্ল্যাক ফরেস্টে নাস্তার জন্য পাওয়া যায় বিশেষভাবে প্রক্রিয়াজাত করা হ্যাম বা শুকরের মাংস৷ সেখানকার ঐতিহ্যবাহী এই খাবার অনেকেই ভালেবাসেন৷3

 

ব্ল্যাক ফরেস্টে এরকম খামারবাড়ির দেখা মিলবে৷ কাঠা আর খড় দিয়ে তৈরি এসব বাড়ি গ্রীষ্মে যেমন ছায়া দেয়, তেমনি শীতকালের কনকনে ঠান্ডা বাতাস থেকে দেয় মুক্তি৷4

 

কুকু ক্লক ঠিক কার আবিষ্কার তা নিয়ে বিতর্ক থাকলেও, এখন ব্ল্যাক ফরেস্টের সঙ্গে এই ঘড়ির নাম বিশেষভাবে জুড়ে গেছে৷ তাই ব্ল্যাক ফরেস্টে গেলে এমন ঘড়ি একটি কিনতে ভুলবেন না৷5

 

ব্ল্যাক ফরেস্টের প্রবেশপথ হিসেবে বিবেচিত বাডেন-বাডেন শহর ‘স্পা’-এ জন্য বিশেষ প্রসিদ্ধ৷ পর্যটকদের জন্য শহরটিতে রয়েছে মিউজিয়াম, অপেরাসহ নানা আয়োজন৷6

 

এই শহরটি বছরে সতের’শ ঘণ্টার বেশি সুর্যের আলো পায়৷ জার্মানিতে এটা সবচেয়ে বেশি৷ বিশ্বের প্রথম ‘সোলার বিশ্ববিদ্যালয়ের’ অবস্থানও ফ্রাইবুর্গে৷ আর শুধুমাত্র জার্মানি নয়, গোটা বিশ্বের মধ্যে ফ্রাইবুর্গ হচ্ছে অন্যতম সবুজ শহর৷7

 

তথ্য সুত্রঃ ডয়েচে ভেলে বাংলা

 

Print Friendly, PDF & Email